বিএনপি নেতা ছমসু মিয়া ও আফতাব আলীকে ১৪ বছর কারাদণ্ড

আওয়ামী লীগের কর্র্মী মহিব মিয়া হত্যা মামলায় বিএনপি নেতা ছমসু মিয়া ও আফতাব আলীকে ১৪ বছর করে কারাদণ্ড ও অপর এক আসামিকে ৭ বছরের কারাদন্ড দিয়েছে সিলেট মহানগর দায়রা জজ আদালত। গতকাল মহানগর দায়রা জজ আদলতের বিচারক আকবর আলী মৃধা এ রায় দেন।

আদালত ও আসামি পরিবার জানায়, ২০১৫ সালের ১৫ জানুয়ারি দুপুরে বিশ্বনাথ উপজেলার আগনশাসন গ্রামের মুহিব মিয়া (৫৫) নামে এক আওয়ামী লীগ কর্র্মীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। কথা কাটাকাটির জের ধরে স্থানীয় দুর্বিত্তরা তাকে হত্যা করে। এঘটনায় রামপাশা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মখন মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক খলিক মিয়া ওই রাতেই পুলিশ নিয়ে ছমসু মিয়ার বাড়িতে যায় এবং মারধর করে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

পরদিন ১৬ জানুয়ারি নিহত মুহিব মিয়ার মেয়ে পপি বেগম বাদি হয়ে রামপাশা ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ছমসু মিয়াকে ১ নং আসামি, বিএনপি কর্মী আফতাব আলীকে ২ নং ও কৌছর খানকে ৩ নংসহ ৫ জনকে আসামি করে সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা করেন। পরে উল্লিখিত ৩ জনের নামে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত এ রায় দেন।

তবে স্থানীয় বাসিন্দা ও দণ্ডপ্রাপ্তদের পরিবার জানিয়েছেন, বিশ্বনাথ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল আক্তারের নিদের্শে মুহিব মিয়ার মেয়েকে দিয়ে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তাদেরকে হত্যা মামলায় জড়িয়ে দেওয়া হয়। কারণ বিএনপি নেতা ছমসু মিয়া রামপাশা ইউনিয়নবাসীর কাছে অনেক জনপ্রিয়। তাকে কারাগারে বন্দি করার জন্য হত্যা মামলায় জড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।