বার্তাবাংলা ডেস্ক »

এস এ চৌধুরী,মৌলভীবাজার:: মৌলভীবাজারে তিন সন্তানের এক জননীকে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল বৃহষ্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় কমলগঞ্জ থানা পুলিশ নিহতের  লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার সীমান্তবর্তী ইসলামপুর ইউনিয়নের পূর্ব কাঠালকান্দি গ্রামের মৃত নজিব আলীর স্ত্রী তিন সন্তানের জননী আমিরুন বেগম (২৮) র ঘর থেকে ঝুলন্ত লাশের খবর পেয়ে কমলগঞ্জ থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে। নিহত বিধবার মা সমরুন বিবি ও ভাবী দিলারা বেগম বলেন, স্বামী মারা যাওয়ার পর পার্শ্ববর্তী বাড়ির আব্দুল মিয়া (৩৫)এর সাথে আমিরুন বেগমের গোপনে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে উঠে। এক পর্যায়ে আমিরুন তিন মাসের অন্তঃসত্তা হলে এ অন্তঃসত্তা নিয়ে উভয় পরিবারের মাঝে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে আব্দুল মিয়া গত বুধবার রাত ১২ টা পর্যন্ত আমিরুনের ঘরে অবস্থান করে গর্ভ বিনষ্ট করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে শ্বাসরুদ্ধ করে- হত্যা শেষে ঘরে লাশ ঝুলিয়ে রাখে বলে আরো বলেন, রাত আড়াইটায় আমিরুনের ৩ বছরের মেয়ে ঘুম থেকে উঠে মায়ের লাশ দেখতে পেয়ে চিৎকার দিয়ে উঠলে-তারা সবাই দৌড়ে এসে মাটির সাথে হাটু লাগানো ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান। এ ঘটনায় অভিযুক্ত আব্দুল মিয়ার বক্তব্য জানতে চেয়ে তাকে খোঁজে পাওয়া যায়নি। ইসলামপুর ইউনিয়নের স্থানীয় ইউপি সদস্য লিয়াকত আলী বলেন, যে অবস্থায় মাটির সাথে- ঝুলন্ত লাশের অবস্থা দেখে আত্মহত্যা বলে মনে হচ্ছে না। তাদের অবৈধ সম্পর্ক বিষয়ে এলাকায় আনাগোনা শুনা যাচ্ছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।  নিহত বিধাব মহিলা তিন মাসের অন্তসত্তা স্বীকার করে লাশ উদ্ধারকারী কমলগঞ্জ থানার এসআই মধুসুদন রায় বলেন, সুরতহাল তৈরী করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখনো কোন লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তবে ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসার পর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »