বার্তাবাংলা ডেস্ক »

শেষ হয়ে গেল আরেকটি বছর। ২০১৮-কে পেছনে ফেলে চলে এলো ২০১৯। এ বছরটি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের জন্য ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ একটি বছর হবে। এ বছর টাইগারদের বেশিরভাগ সিরিজই খেলতে হবে বিদেশে। সেইসঙ্গে আছে ওয়ানডে বিশ্বকাপের মতো মহাগুরুত্বপূর্ণ আসর।

বাংলাদেশ দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু তাই বছরের শুরু থেকেই ক্রিকেটারদের দিকে বাড়তি নজর রাখার কথা জানিয়েছেন। বিপিএল দিয়ে শুরু হচ্ছে বছর। এই টুর্নামেন্টকে তাই বেশ গুরুত্বের সঙ্গে দেখছেন প্রধান নির্বাচক। আগেভাগেই জানিয়ে রাখলেন, প্রতিটি ক্রিকেটারের পারফরম্যান্স, অ্যাপ্রোচ পূঙ্খানুপুঙ্খভাবে নজরে রাখবেন তারা।

২০১৯ সালের চ্যালেঞ্জ নিয়ে নান্নু বলেন, ‘সবমিলিয়ে ২০১৯ সালে কিন্তু অনেক সিরিজ আছে। অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ সিরিজ। নিউজিল্যান্ড সফরে তিনটি টেস্ট ম্যাচ দিয়ে আমরা শুরু করছি। সেই হিসেবে অনেক চ্যালেঞ্জিংভাবে বছরটি শুরু হয়েছে। যেহেতু ঘরোয়াতে বিপিএল দিয়ে শুরু করছি, শর্টার ভার্সনের ক্রিকেট। সবদিকেই ক্রিকেটারদের প্রতি নজর থাকবে। যেহেতু বিশ্বকাপ আছে সামনে সুতরাং আমার কাছে মনে হয় ক্রিকেটারদের প্রত্যেকটি পদক্ষেপ এবং পারফর্মেন্সই গণ্য করতে হবে।’

আগামী বছর আবার আছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সেই হিসেবে এবারের বিপিএল বাড়তি গুরুত্ব বহন করবে বলেই মনে করছেন প্রধান নির্বাচক। তিনি বলেন, ‘আমাদের নতুন বছরটি বিপিএল দিয়ে ভালোভাবে শুরু হোক। খেলোয়াড়দের পারফর্মেন্স এখানে দেখা হবে। কারণ ২০২০ এ কিন্তু টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আছে। সুতরাং সেই হিসেবে এই বিপিএল থেকেই পরিকল্পনা শুরু হবে। তাই এটিতে খুব ভালোভাবেই নজর দেয়া হবে। আমার বিশ্বাস যে খেলোয়াড়েরা যেভাবে এখন ম্যাচিউরড এবং দায়িত্ব নিতে শিখেছে, সুতরাং সব ফরম্যাটে ভালো করার ইচ্ছা আছে আমাদের।’

জাতীয় দলে একটা সময় অপরিহার্য হয়ে উঠেছিলেন সাব্বির রহমান আর নাসির হোসেন। অনিয়ম, শৃঙ্খলাভঙ্গের মতো অভিযোগ আছে তাদের বিরুদ্ধে। এই দুই ক্রিকেটারের বিপিএল দিয়ে ফেরা প্রসঙ্গে নান্নু বলেন, ‘সবমিলিয়ে আমাদের পুলের যে সকল খেলোয়াড় আছে ৪০ জন ওরা কিন্তু এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত। সেই হিসেবে সব ক্রিকেটারের প্রতিই সমানভাবে নজর দেয়া হবে। সবার পারফর্মেন্সই কাউন্টেবল। সেই হিসেবে কাউকে কোনও জায়গা থেকে ল্যাকিংয়ে দেখবেন না। যে যে ফরম্যাটেই খেলুক না কেন পারফর্ম করতে হবে।’

বিপিএলে মিনহাজুল আবেদিন নান্নু চিটাগং ভাইকিংসের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর। সেই হিসেবে নিজের দলের প্রতিও তার আলাদা প্রত্যাশা নিশ্চয়ই আছে। চিটাগং ভাইকিংসের লক্ষ্য নিয়ে তিনি বলেন, ‘এবার আমরা মোটামুটি একটি ব্যালেন্স দল গঠন করেছি ভাইকিংসের। মুশফিকুর রহিম আমাদের দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছে। যেহেতু গত বছর আমরা ভালো জায়গায় থাকতে পারিনি, এবার ইচ্ছা আছে এবং আমাদের বিশ্বাস এক থেকে চারের মধ্যে থাকার।’

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »