বার্তাবাংলা ডেস্ক »

ভারতের সবরীমালা মন্দিরে নতুন ইতিহাসের জন্ম হলো। শতাব্দীর প্রাচীন প্রথা ভেঙে আয়াপ্পার মন্দিরে ঢুকে পড়লেন দুই নারী। বুধবার চল্লিশ বছর বয়সী দুই নারী ভক্ত এই নজির গড়েন। শত বাধা বিপত্তি অগ্রাহ্য করে ব্রহ্মচারী আয়াপ্পার দর্শন করেন তারা। এই দুই সাহসী নারীর প্রাথমিক পরিচয় পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে একজনের নাম বিন্দু, অপরজনের নাম কণকদূর্গা।

পুলিশ বলছে, বুধবার ভোররাতে মন্দিরে প্রবেশ করেন ওই দুই নারী। প্রার্থনা সেরে দিনের আলো ফোটার আগেই চলে যান তারা। ওই ভক্তদের নিরাপত্তার জন্য মোতায়েন ছিল পুলিশকর্মীরা। গত ডিসেম্বরেও একবার মন্দিরে ঢোকার চেষ্টা করেছিলেন তারা। তবে সেবার বিফল হয়ে ফিরে যেতে হয় তাদের।

গতবার পাম্বা বেস ক্যাম্প থেকে ছয় ঋতুবতী নারীসহ ১১ জন মন্দিরের উদ্দেশে রওনা দেন। এই খবর বিক্ষোভকারীদের কানে পৌঁছাতেই পরিবেশ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে এখনও ঋতুবতী নারীদের মন্দিরে প্রবেশের বিরুদ্ধে সরব আয়াপ্পা ভক্তরা। ১১ জন নারীকে কোনও মতেই মন্দিরে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি।

গত একশো বছরের রীতি অনুযায়ী, ৮ থেকে ৫০ বছর বয়সের কোনও নারীই সবরীমালা মন্দিরে প্রবেশ করতে পারতেন না। পুরনো নিয়মে বদল আনে সুপ্রিম কোর্ট। গত ২৮ সেপ্টেম্বর যুগান্তকারী রায় দেয় সর্বোচ্চ আদালত। যে কোনও বয়সের নারীই এই মন্দিরে পা রাখতে পারবেন বলে জানান বিচারপতিরা।

তবে সুপ্রিম কোর্টের রায়ের বিরোধিতায় একাধিক হিন্দুত্ববাদী সংগঠন আন্দোলন শুরু করে। একশো বছরের রীতি ভেঙে সবরীমালায় কোনওভাবেই ঋতুবতী নারীরা প্রবেশ করতে পারবেন না বলেই জানান আন্দোলনকারীরা।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »