চট্টগ্রামে চলছে ঢিলেঢালা হরতাল » Leading News Portal : BartaBangla.com

বার্তাবাংলা ডেস্ক »

ctg hartal day 2বার্তাবাংলা ডেস্ক :: কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে বন্দরনগরী চট্টগ্রামে বিএনপি-জামায়াতের ডাকা ৩৬ ঘণ্টার হরতালের দ্বিতীয় দিন পার হচ্ছে। হরতাল চলাকালে বুধবার ভোরে নগরীর আকবর শাহ এলাকায় বেশ কয়েকটি সিএনজি অটোরিক্সা ভাংচুরের খবর পাওয়া গেছে।

তবে হরতালের প্রথম দিন মঙ্গলবার বিকেল থেকে ঝিমিয়ে পড়া হরতাল দ্বিতীয় দিনেও আর চাঙ্গা হয়নি। নগরীতে দ্বিতীয় দিনের হরতালের শুরু থেকেই বিভিন্ন সড়কে প্রচুর পরিমাণে গণপরিবহন নেমেছে। রিক্সা চলাচল প্রায় স্বাভাবিক আছে। ব্যক্তিগত যানবাহন নগর ঘুরে তেমন চোখে পড়েনি। এর ‍বাইরে মানুষের জীবনযাত্রা অনেকটাই স্বাভাবিক আছে।

দ্বিতীয় দিনের হরতালেও যথারীতি নগরীর নাসিমন ভবনসহ আশপাশের এলাকা মিছিলে-স্লোগানে মুখর করে রেখেছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা। এসব এলাকা দিয়ে যানবাহন চলাচলও কার্যত বন্ধ আছে।

হরতালের শুরুতে ভোর সোয়া ৬টার দিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আকবর খোন্দকারের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে নগরীর কাজির দেউড়ির মোড়, লাভ লেন, এনাযেতবাজার এলাকা প্রদক্ষিণ করে নাসিমন ভবনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে আসেন।

এরপর নগর বিএনপির সভাপতি আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরীর নেতৃত্বে হরতালের সমর্থনে মিছিল বের হয়। মিছিলটি মেহেদিবাগ থেকে নিউমার্কেট হয়ে রেলস্টেশন এলাকা প্রদক্ষিণ করে পুনরায় নাসিমন ভবনের সামনে এসে সমাবেশ করে।

এসময় গোলাম আকবর খোন্দকার, নগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান, শামসুল আলম, এ এম নাজিম উদ্দিন, কেন্দ্রীয় সদস্য মাহবুবুর রহমান শামীম, আনোয়ার হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, হরতাল শুরুর পর ভোর ৬টার দিকে কয়েকজন পিকেটার নগরীর খুলশী ‍থানার আকবর শাহ এলাকায় এলোপাতাড়ি ঢিল ছুঁড়ে কয়েকটি সিএনজি অটোরিক্সা ভাংচুর করে। এসময় ওই এলাকায় আতংকের সৃষ্টি হলেও পরে আবার পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসে।

তবে খুলশী থানার ওসি আব্দুল লতিফ এ ধরনের কোন ঘটনা শুনেননি বলে জানিয়েছেন।

হরতালকে কেন্দ্র করে নগরীতে প্রায় দু’হাজার অতিরিক্ত পুলিশ ও বিজিবি মোতায়েন আছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

হরতালের সমর্থনে কাজির দেউরী  থেকে বুধবার সকাল ৭টার দিকে একটি মিছিল বের করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল। মিছিলটি নগরীর এনায়েত বাজার হয়ে দলীয় কার্যালয় নাসিমন ভবনের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

এদিকে মঙ্গলবার গভীর রাতে হরতালের সমর্থনে সীতাকুন্ডে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের   বাড়বকুন্ড ও ফৌজদারহাটসহ বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে গাড়ি ভাংচুর করেছে পিকেটাররা। এসময় একজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানোন সীতাকুন্ড থানার ডিউটি অফিসার এএসআই জহির‍ুল হক।

হরতালের মধ্যে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় কিছু কিছু দোকানপাট, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খুলেছে। তবে সরকারী-বেসরকারী অফিস, কলকারখানা খোলা আছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যথারীতি বন্ধ আছে।

হরতাল চলাকালে চট্টগ্রাম থেকে দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ আছে। ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক আছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

মন্তব্য করুন »