বার্তাবাংলা ডেস্ক »

এশিয়া কাপের সুপার ফোরের প্রথম দিন দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল আফগানিস্তান এবং পাকিস্তান। আবুধাবির শেখ জায়েদ ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ওই ম্যাচে ৩ উইকেটে আফগানদের বিপক্ষে জয় পেয়েছে পাকিস্তান। যদিও এই ম্যাচে পাকিস্তানিদের ভিত কাঁপিয়ে দিয়েছিল আফগানরা।তবে ম্যাচে ভিন্ন ভিন্ন তিন ঘটনায় দোষি সাব্যস্ত হয়ে জরিমানার কবলে পড়েছেন পাকিস্তানের পেসার হাসান আলি, আফগানিস্তানের স্পিনার রশিদ খান এবং অধিনায়ক আসগর আফগান। তিনজনেরই ম্যাচ ফি’র ১৫ ভাগ করে কাটা হয়েছে এবং তিনজনের আমলানামাতেই ১টি করে ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ হয়েছে।হাসান আলি এবং রশিদ খানের ক্যারিয়ারে এই প্রথম কোনো ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ হলো। আর আফগানিস্তান অধিনায়ক আসগর আফগানের ক্যারিয়ারে, ২৪ মাসের মধ্যে এটা নিয়ে দ্বিতীয়বার যোগ হলো ডিমেরিট পয়েন্ট। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এক ম্যাচে আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করায় তাকে সতর্ক করা হয়েছিল এবং একটি ডিমেরিট পয়েন্ট দেয়া হয়েছিল। তার নামের পাশে এখন ডিমেরিট পয়েন্ট ২টি।

আফগানিস্তানের ইনিংসের ৩৩তম ওভারে বল করছিলেন পাকিস্তানি পেসার হাসান আলি। ব্যাটসম্যান হাশমতউল্লাদ শহিদি। নিজের বলে ফিল্ডিং করে শহিদিকে বল ছুড়ে মারার হুমকি দেন হাসান আলি। যেটা অপরাধের পর্যায়ে পড়ে।৩৭তম ওভারে পাকিস্তানি পেসার হাসান আলির সঙ্গেই কিছুটা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন আফগান অধিনায়ক আসগর আফগান। একটি সিঙ্গেল নেয়ার সময় আসগর ইচ্ছা করেই হাসান আলির কাঁধে একটি ধাক্কা দিয়ে যান। যা চোখ এড়ায়নি ফিল্ড আম্পায়ারদের।রশিদ খানের অপরাধ, পাকিস্তান ইনিংসের ৪৭তম ওভারে তাদের ব্যাটসম্যান আসিফ আলিকে সরাসরি আঙ্গুল তুলে আউট ঘোষণা করে মাঠ ছাড়ার জন্য বলেন তিনি। যা একজন আউট হওয়া ব্যাটসম্যানের জন্য খুবই অপমানজনক। এটা ক্রিকেট আইনে খুবই জঘন্য অপরাধের পর্যায়ে পড়ে। যা নিজে থেকে করে ফেলেছেন রশিদ খান।ম্যাচ শেষে রেফারি অ্যান্ডি পাইক্রফ্ট তিন অভিযুক্ত ক্রিকেটারকেই ডাকেন। তারা তিনজনই নিজেদের অপরাধ স্বীকার করে নিয়েছেন। যে কারণে, আলাদা করে কোনো শুনানির প্রয়োজন হয়নি।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »