বার্তাবাংলা ডেস্ক »

‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিবেদিত ১০০ কবির কবিতা’ শিরোনামের কাব্যসংকলন সম্পাদনা করলেন মো. ইসরাফিল আলম এমপি। কাব্যসংকলনটি প্রকাশ করেছে দাগ প্রকাশ।এই কাব্যসংকলনে সূচিবন্ধ হয়েছেন যথাক্রমে: সৈয়দ শামসুল হক, নির্মলেন্দু গুণ, মহাদেব সাহা, বেলাল চৌধুরী, বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর, রফিক আজাদ, মুহাম্মদ নুরুল হুদা, হাবীবুল্লাহ সিরাজী, অসীম সাহা, রবিউল হুসাইন, আনোয়ারা সৈয়দ হক, সোহরাব পাশা, আসাদ মান্নান, বিমল গুহ, মাহমুদ হাসান, মো. ইসরাফিল আলম এমপি, কাজী রোজী, রবীন্দ্র গোপ, মুহাম্মদ সামাদ, দুখু বাঙাল, হারিসুল হক, নাসির আহমেদ, শিহাব সরকার, দুলাল সরকার, আমীরুল ইসলাম, নূহ-উল-আলম লেনিন, রুবী রহমান, আসলাম সানী, ফরিদ আহমদ দুলাল, মোশাররফ হোসেন ভূঞা, সুজন বড়ুয়া, বিমলেন্দ্র চক্রবর্তী, আলম তালুকদার, বুলবুল মহলানবীশ, ফকির ইলিয়াস, আমিনুল ইসলাম, কাইয়ুম নিজামী, আমিনুর রহমান সুলতান, নুরুন্নাহার শিরীন, দীলতাজ রহমান, রাহমান ওয়াহিদ, সেলিনা শেলী, তপন বাগচী, কাজী রহিম শাহরিয়ার, মাসুদ পথিক, মানস বিশ্বাস, কাজল রশীদ, মিজানুর রহমান বেলাল, এমরান কবির, প্রত্যয় হামিদ, অতনু তিয়াস, তুলি রহমান, আবুহেনা মোস্তাফা কামাল প্রমুখ।

কবিদের কবিতা পাঠকালে পাঠকরা পাবেন প্রধানমন্ত্রীর জীবনের নানা প্রাসঙ্গিক কর্মের বর্ণনা। বলাবাহুল্য, যে কবির দায় থাকে পাঠক-চৈতন্যের সঙ্গে আন্তরিক অন্বয়ের; দ্ব্যর্থহীন ভাষায় যিনি বলতে পারেন- কবিতা রচনা ব্যক্তিস্বরূপের আত্মপ্রকাশ নয়, আসলে তা ব্যক্তিস্বরূপের হৃদয়ারণ্য থেকে নিষ্ক্রমণ। সব কবিই কাব্যচর্চায় বেশ আত্মসচেতন। সকল কবির কাব্যের চিত্রকল্প, উপমা, শব্দ-বাক্যের গঠনশৈলী, প্রকরণ যথেষ্ট সংবেদনশীল।সম্পাদক সম্পাদকীয়তে লিখেছেন- ‘গণপ্রজাতন্ত্রী সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা যার অসাধারণ মানবিক গুণাবলি, প্রতিভা, দক্ষতা, দেশপ্রেম, নেতৃত্ব, ধৈর্য্য, সহনশীলতা, সৃজনশীলতা দিয়ে- বাংলাদেশ, বাঙালি জাতি, বাংলা সাহিত্য-সংস্কৃতি-ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে বিশ্বের দরবারে এক নতুন উচ্চতায় উন্নীত করেছেন।উল্লেখ্য, ৩০ ডিসেম্বর, ২০১১ সালে শেখ হাসিনাকে বাংলা ভাষার ধারক ও বাহক হিসেবে বাংলা একাডেমি তাদের বার্ষিক সাধারণ সভায় সম্মানসূচক ফেলোশিপ প্রদান করে। এছাড়াও ১২ জানুয়ারি ২০১২ ইং তারিখে দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তি এবং উন্নয়নে অনন্য অবদানের জন্য ভারতের ত্রিপুরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাঁকে ডক্টর অব লিটারেচার বা ডি-লিট ডিগ্রী প্রদান করে। ২০১৪ সালে সমুদ্রসীমা জয়ের জন্য তিনি সাউথ সাউথ পুরস্কার লাভ করেন ৷ ২০১৫ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ ৭০তম অধিবেশনে পরিবেশ বিষয়ক সর্বোচ্চ পুরস্কার চ্যাম্পিয়নস অব দ্য আর্থ পুরস্কার লাভ করেন। এছাড়াও তিনি ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে অনন্য অবদানের জন্য আইসিটি টেকসই উন্নয়ন পুরস্কার লাভ করেন। এছাড়াও দেশ-বিদেশের অসংখ্য পুরস্কার অর্জন করেছেন।

তাঁর সুস্বাস্থ, দীর্ঘায়ু ও কল্যাণময় সাফল্য কামনা করছি। তাঁকে নিয়ে ইতিমধ্যে রচিত হয়েছে অনেক প্রবন্ধ, নিবন্ধ, ছড়া-গান। এবার তাঁকে নিয়ে রচিত নির্বাচিত ১০০ কবির নিবেদিত কবিতা দিয়ে প্রকাশ হলো এই কাব্যসংকলনটি। গ্রন্থটি পাঠ করে যদি পাঠকেরা গণপ্রজাতন্ত্রী সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা এই অসামান্য ব্যক্তিকে অনুধাবন করে নিজেকে দেশের মাটি ও মানুষের সেবায় নিজেকে সংযুক্ত রাখতে পারে; তবেই গ্রন্থটির প্রয়াস স্বার্থক হবে।’প্রধানমন্ত্রীর নামে কবিদের কল্পনার চরিত্রকে নিবেদিত কবিতার রিপ্রেজেন্টশন সত্যি অভিনব। কিছু কবিতা নেত্রী বা মা বা দেশরত্ন সাবজেক্ট করে রচিত। কিছু কবিতার মধ্যে নেত্রীকে ধারণ করার অ্যাবস্ট্রাকশন। যা আমাকে আলোড়িত করতে পেরেছে। প্রধানমন্ত্রীকে ঘিরেই কিছু কবিতার মধ্যে কবির ‘দেশপ্রেম’ ফুটে উঠেছে। যা কবিতার স্ট্রাকচারালিজম দৃঢ় ও সমৃদ্ধ হয়েছে অনেকাংশে।পাঠকমহল ‘শেখ হাসিনাকে নিবেদিত ১০০ কবির কবিতা’ কাব্যসংকলনটি পাঠকালে নিঃসন্দেহে প্রধানমন্ত্রীকে ও সম্পাদককে নতুন পরিচয়ে চিনতে পারবেন। ছন্দপ্রিয়দের জন্য অক্ষরবৃত্তের, মাত্রাবৃত্তের ছন্দের অনেক কবিতা আছে; যা স্বার্থক কাব্যগ্রন্থটি সংরক্ষরণ করার দাবি রাখে।

 

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »