বার্তাবাংলা ডেস্ক »

জাবি প্রতিনিধি ঃ শিক্ষক লাঞ্ছনার ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ সাধারন সম্পাদককে বহিষ্কারের ব্যাপারে শনিবার রাতভর নাটকীয় ঘটনা ঘটেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে। শিক্ষক সমিতির দাবির মুখে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কারের আশ্বাস দিলেও পরবর্তীতে ছাত্রলীগের বিক্ষোভের মুখে তা অস্বীকার করেন উপাচার্য অধ্যাপক মো. আনোয়ার হোসেন।

শনিবার রাত ৯ টায় প্রান্তিক গেইটে ছাত্রলীগ সাধারন সম্পাদক রাজিব আহমেদ রাসেল কর্তৃক শিক্ষক লাঞ্ছিত হওয়ার পর শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদারের নেতৃত্বে শিক্ষকরা উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নেন। রাত সাড়ে ১২টার দিকে উপাচার্য ঢাকা থেকে ক্যাম্পাসে ফিরেন। এসময় তিনি শিক্ষকদের নিকট থেকে অভিযোগের বিষয়ে বিস্তারিত শুনেন এবং অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করবেন বলে আশ্বস্ত করেন। তার দেয়া আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষকরা সে স্থান ত্যাগ করেন।

এদিকে বহিষ্কারের খবর শুনে রাত ২ টার  দিকে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা বিভিন্ন হল থেকে একত্রিত হয়ে বিক্ষোভ মিছিল সহ উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করে। এ সময় তারা নিরাপত্তা রক্ষীদের কক্ষের জানালার কাঁচ ও বৈদ্যুতিক বাতি ভাংচুর করে। কিছুক্ষণ পর প্রক্টরিয়াল বডির উপস্থিতিতে উপাচার্য নিচে নেমে আসেন এবং উপস্থিত ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন।

বহিষ্কারের কথা অস্বীকার করে তিনি বলেন, বহিষ্কারের ব্যাপারে শিক্ষক সমিতিকে মৌখিকভাবে আশ্বস্ত করেছিলাম আমি। যেহেতু তাদেরকে কোন লিখিত আশ্বাস দেইনি, সেহেতু বহিষ্কারের কোন প্রশ্নই উঠেনা। তিনি আরো বলেন, রাজিব কোন অপরাধ করেনি, বরং সে সঠিক কাজই করেছে। এছাড়াও তিনি বলেন, উপাচার্য তোমাদের সাথে আছেন।

এ ব্যাপারে শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক ড. মো. শরিফ উদ্দিন বলেন, উপাচার্য এক্ষেত্রে প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছেন। তিনি কথা ও কর্মকান্ডের মধ্যে মিল রাখেননি। শিক্ষক সমিতির প্রতিনিধিরা তার সাথে দেখা করে পরিস্থিতি অনুযায়ী পরবর্তী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।

 

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »