জনগণের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ অব্যাহত রাখতে চাই

হাসিনা-মোদি

নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার চতুর্থ বিমসটেক শীর্ষ সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের ফাঁকে ওই বৈঠকে একসঙ্গে দুই দেশের উন্নয়নে কাজ করতে ঐকমত্যে পৌঁছেছেন তারা।

বঙ্গোপসাগরের উপকূলবর্তী দেশগুলোর মধ্যে অর্থনৈতিক ও কারিগরি সহযোগিতার লক্ষ্যে ১৯৯৭ সালে ব্যাংকক ঘোষণার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত বে অব বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভ ফর মাল্টি সেক্টরাল টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কো-অপারেশনের (বিমসটেক) দু’দিন ব্যাপি চতুর্থ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে নেপালে।

সম্মেলনের উদ্বোধনী দিনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তবাণিজ্য অঞ্চল সৃষ্টি, বিনিয়োগ ও জ্বালানি খাতে যৌথ প্রচেষ্টা, জনগণের মধ্যে যোগাযোগ এবং অর্থায়ন প্রক্রিয়া গড়ে তোলার মাধ্যমে বিমসটেক ফোরামে সহযোগিতা সম্প্রসারণের ওপর জোর গুরুত্বারোপ করেন।

পরে দ্বিপাক্ষিক এক বৈঠকে নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দুই দেশের সম্পর্ক উন্নয়নের ব্যাপারে আলোচনা করেন তারা। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমারের বরাত দিয়ে দেশটির সংবাদমাধ্যম পিটিআই এ তথ্য জানিয়েছে।

বৈঠকের পর দুই দেশের সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে এক টুইট বার্তায় রাভিশ কুমার বলেন, ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, ভাষা ও অভিন্ন মূল্যবোধের ভিত্তিতে ভ্রাতৃত্বপূর্ণ এক সম্পর্ক। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ব্যাপারে আলোচনা করেছেন।

শান্তিপূর্ণ, সমৃদ্ধশালী ও টেকসই বঙ্গোপসাগর অঞ্চলের সন্ধানে প্রতিপাদ্য নিয়ে এবারের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে নেপালে। আঞ্চলিক এই জোটের শুরুতে বাংলাদেশ, ভারত, শ্রীলঙ্কা ও থাইল্যান্ড সদস্য ছিল; পরে মিয়ানমার, নেপাল ও ভুটান বিমসটেকে যোগ দেয়। বিশ্বের প্রায় ২২ শতাংশ মানুষ বিমসটেকভুক্ত দেশগুলোতে বসবাস করে।