বার্তাবাংলা ডেস্ক »

বৃষ্টির দিনে গোসল করা তো দূরের কথা, মাঝেমধ্যে শিশুরা হাত-মুখও ধুতে চায় না। আবার স্কুলে বা খেলার মাঠে হঠাৎ বৃষ্টি এলে তাতে প্রাণভরে ভিজতেও তাদের জুড়ি নেই। নানা কারণে বর্ষাকালে শিশুদের ত্বকে ঘা ও চুলকানি দেখা দেয়। বর্ষার স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়াও এর জন্য দায়ী। এ সময় বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি বলে প্রকৃতিতে ছত্রাকসহ নানা জীবাণুর বংশবৃদ্ধি ঘটে বেশি। বর্ষাকালে তাই শিশুদের দিকে একটু বিশেষ নজর দেওয়া চাই।

স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়ায় বাচ্চারা ঘামেও বেশি। ঘামে ভেজা স্কুলের জামাকাপড় রোজ ধুয়ে দিলে ভালো। গেঞ্জি, মোজা ও অন্তর্বাস রোজ ধুয়ে দিতে হবে। বৃষ্টির দিনে অন্য কাপড়ের চেয়ে মোজা শুকাতে একটু বেশি সময় লাগে। তাই স্কুলে যাওয়ার সময় তাড়াহুড়োয় অনেক শিশু হালকা ভেজা মোজাই পায়ে গলিয়ে নেয়। এতে পায়ের ত্বকের সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা খুব বেশি।

 

বর্ষায় পা ছাড়াও আঙুলের ভাঁজে, বগলের নিচে, কুঁচকি ও চুলের ফাঁকে ঘাম জমে বলে এসব স্থানে সংক্রমণ হয়। তাই গোসলের সময় এসব স্থান ভালোভাবে ধুয়ে পরিষ্কার রাখার পাশাপাশি সব সময় শুকনো রাখতে হবে।

এই সময় ছোট শিশুদের ডায়াপার থেকে ত্বকের সমস্যা বেশি হয়। বর্ষায় শিশুদের প্রস্রাব বেশি হয়। এই প্রস্রাব জমে ডায়াপারের নিচের ত্বকে ঘা সৃষ্টি হয়। বর্ষায় ডায়াপার পরালে বারবার দেখা উচিত সেটি বেশি ভিজে গেছে কি না। ডায়াপার ব্যবহারের আগে ভ্যাসলিন বা জিঙ্ক-জাতীয় ক্রিম লাগালে ত্বকের সমস্যা অনেকটা কমবে।

স্ক্যাবিস নামে একধরনের ছোঁয়াচে রোগ। এই সময় বেশি হতে পারে। ঘরে বা স্কুলে একজন কারও হলে সবার মাঝে তা দ্রুত ছড়ায়। যাঁরা শিশুর পরিচর্যা করেন, তাঁদের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা উচিত। স্ক্যাবিস হলে বাড়ির সবাইকে একসঙ্গে চিকিৎসা নিতে হবে।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »