বার্তাবাংলা ডেস্ক »

শাহরুখ খানের নায়িকা হতে কে না চায়! তার ওপর সঞ্জয় লীলা বানসালির মতো পরিচালকের ছবির নায়িকা! বলিউডের এই নামী পরিচালকের সঙ্গে কাজ করার স্বপ্ন দেখেন অনেকেই। কিন্তু এই পরিচালকের ছবিতে কাজ করার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছিলেন কারিনা কাপুর খান। ‘দেবদাস’ ছবিতে তিনি নাকি শাহরুখ খানের ‘পারো’ হতে চাননি।

সঞ্জয় লীলা বানসালি ‘দেবদাস’ ছবিটি নির্মাণ করেন ২০০২ সালে। ওই সময় বড় আয়োজনের ছবির তালিকায় ছিল এই ‘দেবদাস’। শুধু তা-ই নয়, বানসালির এই ছবি বলিউডে ইতিহাস তৈরি করে। ‘দেবদাস’ ছবিতে শাহরুখ মূল চরিত্রে অভিনয় করেন। আর এই ছবিতে চন্দ্রমুখীর ভূমিকায় বাজিমাত করেন বলিউডের ‘ধকধক গার্ল’ মাধুরী দীক্ষিত।

এবার জানা গেছে, বানসালি তাঁর ‘দেবদাস’ ছবিতে শাহরুখের ‘পারো’ হিসেবে প্রথম পছন্দ করেন কারিনাকে। তাই তিনি কারিনাকে ‘পারো’ চরিত্রে অভিনয় করার প্রস্তাব দেন। এমনকি কারিনা এই চরিত্রের জন্য স্ক্রিন টেস্টও দেন। কিন্তু এরপর বেঁকে বসেন কারিনার মা ববিতা। বলিউডের এই বর্ষীয়ান অভিনেত্রী চাননি তাঁর মেয়ে এত কম বয়সে ‘পারো’র মতো চরিত্রে অভিনয় করুক। তখন চলচ্চিত্রে কারিনার অভিনয়ের ব্যাপারে সব সিদ্ধান্ত নিতেন ববিতা। তাই মায়ের কথামতো বানসালির প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন কারিনা। এরপর বানসালি সাবেক বিশ্বসুন্দরী ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চনকে ‘পারো’ চরিত্রের জন্য প্রস্তাব দেন। এই চরিত্রে নিজের অসাধারণ অভিনয় দিয়ে দর্শকের মনে আসন গড়েছেন ঐশ্বরিয়া। আর তাঁর অভিনয় দর্শক মনে রাখবে সব সময়।

শোনা গিয়েছিল, ‘ডোলা রে ডোলা’ গানের সঙ্গে নাচের সময় ঐশ্বরিয়া কানে ভারী দুল পরেছিলেন। আর তাই এই বলিউড সুন্দরীর কান কেটে রক্ত ঝরছিল। তা-ও নাচ বন্ধ করেননি তিনি।

দেবদাস’ ছবিকে ঘিরে অনেক অজানা তথ্য বের হচ্ছে। ছবির মোট বাজেট ছিল ৫০ কোটি রুপি, যার মধ্যে ২০ কোটি রুপি ব্যয়ে এই ছবির ছয়টা সেট তৈরি হয়। ‘দেবদাস’ ছবির নাম আছে বলিউডের সবচেয়ে ব্যয়বহুল ছবির তালিকায়। ছবিতে ঐশ্বরিয়ার কক্ষটি ছিল কাচ দিয়ে তৈরি। তা নির্মাণ করতে তখন খরচ হয়েছিল ১ কোটি ২২ লাখ রুপি। বৃষ্টির দৃশ্যের শুটিংয়ের পর এই কক্ষটিকে বারবার রং করতে হয়েছে। সাত মাস পর্যন্ত ‘পারো’র এই কক্ষটি দর্শকদের দেখার জন্য সংরক্ষণ করা হয়। এদিকে চন্দ্রমুখীর কক্ষ নির্মাণের অঙ্ক শুনলে চোখ কপালে উঠবে। এই সেট তৈরির জন্য ১২ কোটি রুপি খরচ হয়।

ছবিটি নির্মাণের জন্য ৭০০ প্রধান আলো এবং ৪২টি উচ্চ শক্তিসম্পন্ন জেনারেটর ব্যবহার করা হয়। যখন ‘দেবদাস’ ছবির শুটিং হয়, তখন ছিল বিয়ের মরসুম। মুম্বাইয়ে আলো আর মণ্ডপের সাজসজ্জার সামগ্রীর ঘাটতি দেখা দেয়। কারণ বানসালি তাঁর ছবির জন্য সব আলো আর সাজসজ্জার সামগ্রী কিনে এনে তা সেটে ব্যবহার করেন।

ছবিতে দেবদাসের বন্ধু চুনীলালের চরিত্রে অভিনয় করেন জ্যাকি শ্রফ। তবে এই চরিত্রের জন্য বানসালির পছন্দ ছিল বলিউডের অন্য দুজন নায়ক। তাঁর প্রথম পছন্দ ছিল সাইফ আলী খান। সাইফ এই চরিত্রে অভিনয় করতে রাজি হননি। পরে পরিচালক গোবিন্দের সঙ্গে কথা বলেন। তিনিও রাজি হননি।

২০০৩ সালে কান চলচ্চিত্র উৎসবে ‘দেবদাস’ ছবির উদ্বোধনী প্রদর্শনী হয়। আর বানসালির ছবিটি অস্কারের বিদেশি ভাষার ছবি বিভাগের জন্য ভারত থেকে মনোনীত হয়।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »