রুক্ষ চুলকে মসৃণ ও ঝলমলে করার ৫ টি আশ্চর্য কৌশল

রুক্ষ চুল

রুক্ষ প্রাণহীন চুল কার ভাল লাগে বলুন। কিন্তু প্রতিনিয়ত আমাদের চুল প্রাণহীন হয়ে যাছে। আর এর পেছনে আমাদের কিছু বাজে অভ্যাস দায়ী। নিয়মিত চুলে ব্লো-ডাই, হেয়ার স্ট্রেটনার, রোলার ব্যবহার ও পাম করে আমরা আমাদের চুলের ক্ষতি করে যাচ্ছি। তবে এসব ছাড়াও সঠিক পরিচর্যার অভাবে চুলে রুক্ষভাব আসতে পারে। আবার অনেকের প্রাকৃতিকভাবে চুল রুক্ষ থাকে। আসুন জেনে নিই রুক্ষ চুলের যত্ন নেওয়ার কিছু ঘরোয়া উপায়।

১। গরম তেল
চুলের পুষ্টি যোগাতে তেলের ব্যবহার সেই আদিকাল থেকে হয়ে আসছে, গরম তেল চুলের রুক্ষতা দূর করে চুলকে করে প্রাণ উজ্জ্বল। ২ টেবিল চামচ বাদাম তেল, অলিভ অয়েল, জোজোবা অয়েল, নারকেল তেল নিয়ে একটি পাত্রে গরম করে নিন। হালকা গরম হলে এটি নামিয়ে মাথায় ভাল করে ম্যাসেজ করুন। গরম পানিতে ভেজানো তোয়ালে দিয়ে মাথা পেচিঁয়ে রাখুন। ২০ মিনিট পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

২। ডিমের সাদা অংশ এবং পানি
চুলের রুক্ষতা কাটাতে ডিম একটি বিস্ময়কর উপাদান। এটি চুলকে ময়েশ্চারাইজ করে চুলকে করে সিল্কি। ১ টি ডিমের সাদা অংশের সাথে ৩ টেবিল চামচ পানি দিয়ে মিশিয়ে একটি প্যাক তৈরি করুন। প্যাকটি চুলে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে ভাল করে শ্যাম্পু করে ফেলুন। শ্যাম্পু করার পর চুলে কন্ডিশনার ব্যবহার করতে ভুলবেন না।

৩। ডিম এবং দইয়ের প্যাক
ডিম এবং দইয়ের প্যাক চুলকে সিল্কি করে থাকে। ২ টি ডিমের সাদা অংশ, ২ টেবিল চামচ টকদই। সবগুলো উপাদান নিয়ে একটি ঘন পেষ্ট তৈরি করুন। এইবার পেষ্টটি চুলে ভাল করে লাগান। ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। ডিম আর দইয়ের প্রোটিন আপানার চুলকে গোঁড়া থেকে মজবুত করার সাথে সাথে প্রাকৃতিকভাবে আপানার চুলকে ঝলমল করবে।

৪। মধু এবং ভেজিটেবল অয়েল
মধু প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার। মধু আর ভেজিটেবল অয়েল চুলকে ভেতর থেকে পুষ্টি দিয়ে থাকে। ২ টেবিল চামচ মধু, ২ টেবিল চামচ ভেজিটেবিল অয়েল মিশিয়ে নিন। এটি আপানার চুলে লাগিয়ে নিন। ১৫/২০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন।

৫। অ্যালোভেরার পেষ্ট
ত্বক ও চুল পরিচর্যায় অ্যালোভেরা একটি অন্যতম উপাদান। অ্যালোভেরা ৪ টেবিল চামচ, দই ৩ টেবিল চামচ, তেল ২ টেবিল চামচ। সবগুলো উপাদান মিশিয়ে পেষ্ট তৈরি করে নিন। ১/২ ঘণ্টার পর ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি আপনার চুল খুব দ্রুত ঝলমলে সিল্কি করবে।