বার্তাবাংলা ডেস্ক »

বলিউডে অনিল কাপুরের ছেলে হর্ষবর্ধন কাপুরের অভিষেক হয় ‘মির্জা’ ছবি দিয়ে। এরপর গত ১ জুন মুক্তি পেয়েছে তার দ্বিতীয় ছবি ‘ভাবেশ যোশি সুপারহিরো’। ছবিটি দিয়ে চলচ্চিত্র সমালোচকদের দৃষ্টি কেড়েছেন তিনি। অথচ এই ছবিটিতে হর্ষ অভিনয় করুক সেটা চাননি তার পরিবার। পরিবারের অবাধ্য হয়ে এই ছবির সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন হর্ষবর্ধন কাপুর।

ছবি সম্পর্কে বলতে গিয়ে হর্ষবর্ধন বলেন, ‘এই ছবিটি নিয়ে বিক্রম এবং আমার মধ্যে অনেকদিন ধরে কথা হচ্ছিল। শত বাঁধা অতিক্রম করে তার সহযাত্রী হয়ে আমরা সফলভাবে ছবির কাজ সম্পন্ন করেছি। এখন আমরা প্রত্যেকেই খুশি। নতুন এ যাত্রা অত্যন্ত আনন্দেরও বটে। সহযোগিতার জন্য আপনাদের সকলকে ধন্যবাদ।’

‘বাভেস জোশি সুপারহিরো’ করতে গিয়ে অনেক মজার এবং আকর্ষণীয় ঘটনা ঘটে গেছে। সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে অভিনেতা হর্ষবর্ধনকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিলো চলচ্চিত্রের ব্যাপারে তিনি পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে পরামর্শ চেয়েছিলেন কি না।

হর্ষ জানালেন, তার বোন সোনম কাপুর তার নিজের জগৎ নিয়ে ব্যস্ত এবং তিনি সব ধরনের চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন। হর্ষবর্ধন মনে করেন, অনেক সময় একজন নায়িকা সকল চলচ্চিত্রের সাথে সহজে মানিয়ে যায়। কিন্তু নায়কের ক্ষেত্রে সেটা অন্যরকম। যেমন, ‘প্যাডম্যান’ চলচ্চিত্রটি সোনমের দ্বারা সম্ভব হতো না। তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, নায়িকারা স্বাধীন হতে পারে। কিন্তু তার ক্ষেত্রে ব্যাপারটা সম্পূর্ণ বিপরীত । সম্পূর্ণ চলচ্চিত্রের দায়িত্ব তার কাধে এবং এজন্য তিনি সোনমের পরামর্শ গ্রহণ করা থেকে নিজেকে বিরত রেখেছেন।

হর্ষ আরও বলেন, ‘ আমার বোন রেহা কাপুর একজন প্রযোজক। রেহা আমার চলচ্চিত্রের স্ক্রিপ্টটি পছন্দ করেননি। তিনি মনে করেন ছবিটির মার্কেটিং ফিডব্যাক ভালো হবে না। অন্যদিকে বাবা অনিল কাপুরও আমার পছন্দের সাথে একমত ছিলেন না। তিনি ছবিটির স্ক্রিপ্ট পড়ে বলেন এটা অনেক বেশি বিমূর্ত।’

বোঝায় যাচ্ছে,হর্ষবর্ধন তার পছন্দ এবং সিদ্ধান্তে অনড়। তার আবেগ তাকে কাজটি করার সাহস দিয়েছে। কারো উপদেশ না শুনে নিয়মিত এই যুদ্ধ চালিয়ে যেতে চান ।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »