বার্তাবাংলা ডেস্ক »

২০১৮-১৯ অর্থবছরের ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। অনুমোদিত বাজেট সংসদে উপস্থাপন করছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। দুপুর ১২টা ৫১ মিনিটে এ বাজেট উপস্থাপন শুরু করেন তিনি।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে অর্থমন্ত্রী ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত এ বাজেট উপস্থাপন করছেন।

 এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার সকালে জাতীয় সংসদ ভবনে মন্ত্রিসভার বিশেষ বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। এর আকার হবে ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা।

এটি হবে বর্তমান সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদের শেষ বাজেট এবং অর্থমন্ত্রীর টানা দশম বাজেট। একই সঙ্গে ব্যক্তিগত ১২তম বাজেটও এটি। আগামী বাজেটে মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপির ১৮ দশমিক ৪ শতাংশ। আর মূল্যস্ফীতির আকার ধরা হয়েছে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ। এ বাজেটের আকার বাড়ছে মাত্র ৬৮ হাজার কোটি টাকা। নির্বাচনী বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আকার নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা।

জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে ভোটার তুষ্টিকেই মূল লক্ষ্য ধরে আজ ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা করছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। নির্বাচনী বছর হওয়ায় এবারের বাজেট সরকার ও সব শ্রেণির মানুষের জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ। কারণ একদিকে ভোট, অন্যদিকে নানা প্রতিশ্রুতি সমৃদ্ধ এই বাজেট বাস্তবায়নে চ্যালেঞ্জের বিষয়টি মাথায় রেখেই চূড়ান্ত করা হয়েছে। যদিও বাজেট বাস্তবায়নে পুরো সময় পাচ্ছে না বর্তমান সরকার। কারণ আগামী ডিসেম্বরেই নির্বাচন হওয়ার কথা। এ নির্বাচন সামনে রেখে সরকার কোনো ধরনের ঝুঁকি নিচ্ছে না। তাই অন্যবারের মতো নতুন নতুন কর চাপিয়ে ভোটারদের অসন্তুষ্ট করার মতো তেমন কোনো ঘোষণা এবার থাকছে না।

বিশ্বব্যাংক ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার ৬ দশমিক ৭ থাকবে বলে অনুমান করছে।

সেখানে অর্থমন্ত্রী জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৮ শতাংশ ধরে বাজেট উপস্থাপন করছেন।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »