বার্তাবাংলা ডেস্ক »

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, ‘শীর্ষ সন্ত্রাসী জোসেফকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলছেন, তিনি নাকি কিছু জানেন না। গোপনে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। কী ভয়ঙ্কর অবস্থা। অথচ সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী তাকে স্যাঁতসেঁতে ঘরের মধ্যে থাকতে হচ্ছে। তাকে সঠিক চিকিৎসাও দেয়া হচ্ছে না।’

সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে দলীয় সন্ত্রাসীদের আশ্রয় দিয়ে সারা দেশে মাদকের নামে মানুষ হত্যা করা হচ্ছে দাবি করে তিনি বলেন, ‘এটা কি জনগণের সরকার? এরা তো গডফাদার, সন্ত্রাসী ও বেআইনি কাজে যারা জড়িত তাদের সরকার।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন বিএনপির এই নেতা।

রিজভী অভিযোগ করেন, গিয়াস কাদের চৌধুরী যে বক্তব্য দেননি সেটা টুইস্ট করে চট্টগ্রামের স্থানীয় একটি পত্রিকা প্রকাশ করে। অথচ ওই বক্তব্যের কারণে ছাত্রলীগ নেতা আবু সাদাত সায়েমের নেতৃত্বে তাদের বাড়িতে হামলা করা হয়। যেখানে ২০টির মতো গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। নিরাপত্তাকর্মীদের ওপর হামলা করা হয়।’

তিনি বলেন, ‘যখন হামলা হয় তখন সেখানে পুলিশ থাকলেও তারা দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে। এই হলো অবস্থা। পুলিশ আর আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা একাকার হয়ে গেছে। তারা একেবারে খালাতো ভাইয়ের ভূমিকা পালন করছে।’

জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর বিভিন্ন স্পটে ত্রাণ বিতরণ, ইফতার বিতরণ করতে পুলিশ বাধা দিয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

রিজভী বলেন, ‘এসব দেখে মনে হচ্ছে আমাদের আর বসে থাকার সময় নেই। দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। আগেই বলেছি আন্দোলনের গতি কেমন হবে তা সরকারের আচারণের উপর নির্ভর করছে।’

ভারত সফর নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বলেছেন ভারতেকে সব দিয়ে দিয়েছেন। অদ্ভূত কথা। আমরা লাইলী-মজনু, শিরি-ফরহাদের, প্রেমের কথা শুনেছি, দেবদাস- পার্বতীর প্রেমের কথা শুনেছি। কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকারপ্রধান শেখ হাসিনা ও ভারতের সঙ্গে প্রেম ইতিপূর্বের সকল প্রেমকে হার মানিয়েছে। এত প্রেম এর আগে আমরা দেখিনি।’

রিজভী বলেন, ‘তারা না চাইতেই সবকিছু উজার করে দিয়ে দেন। তার প্রেম এত গভীর ভারতের জন্য। যার জন্যে যারা স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের কথা বলবে তাদের তো জেলে থাকতে হবেই।’

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবীর খোকন, সহ দফতর সম্পাদক মো. মুনির হোসেন, বেলাল আহমেদ, নির্বাহী সদস্য শামসুজ্জামান সুরুজ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »