বার্তাবাংলা ডেস্ক »

রাজধানীতে সুপারশপ মীনা বাজারে বিএসটিআইর নিষিদ্ধ ঘোষিত পেরিয়ার মিনারেল ওয়াটারের বোতল পেয়েছে ডিএমপির ভ্রাম্যমাণ আদালত। ফ্রান্সের পেরিয়ার ব্র্যান্ড বেশ কয়েকবার বাংলাদেশে এই মিনারেল ওয়াটারের ব্যবসা করতে চেয়েছিল। কিন্তু পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর একে ছাড়পত্র দেয়নি পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে দেশের একমাত্র প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই)।

বুধবার দুপুরে মীনা বাজারের লালবাগের এতিমখানা রোড শাখায় এই অভিযান চালানো হয়। অভিযানের নেতৃত্ব দেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) নির্বাহী মেজিস্ট্রেট মশিউর রহমান। এ সময় নিষিদ্ধ পণ্য ছাড়াও বাজারটি থেকে পচা, দুর্গন্ধযুক্ত মাছ-মাংস জব্দ করা হয়। বিএসটিআই অধ্যাদেশ ও ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে মীনা বাজারের দুই কর্মকর্তাকে ৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

অভিযানে সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে বিএসটিআইর ইন্সপেক্টর মো. শহীদুল ইসলাম ছাড়াও লালবাগ থানা পুলিশ ও মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। অভিযানে দেখা যায়, বিএসটিআইএর মানচিহ্ন ছাড়া বিদেশি নেভিয়া ক্রিম, কোকাকোলা জিরো ক্যাল, পালমোলিভ সাবান ও ফ্রান্সের পেরিয়ার মিনারেল ওয়াটার বিক্রি করছে মীনা বাজার।
ইন্সপেক্টর মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, পেরিয়ার পানির ৭৫০ মিলিলিটারের বোতল ২০০ টাকার ওপরে বিক্রি করা হচ্ছে, অথচ ফ্রান্সের এই পানিটি পরীক্ষা করে নানা অসংগতি পাওয়ায় আমরা একে বাংলাদেশে বিক্রির অনুমতি দেইনি। তারপরও তারা অবাধে এগুলো বিক্রি করছে।

এ ছাড়া অভিযানে মীনা বাজারের ডিপ ফ্রিজ খুলে দুর্গন্ধযুক্ত মাছ- মাংস পাওয়া যায়। ফ্রিজ থেকে পাওয়া চিংড়ি মাছ থেকেও গন্ধ বের হচ্ছিল। অার পুরনো পালংশাক ও লিচু পাওয়া যায় আউটলেটে।

অভিযানের বিষয়ে মেজিস্ট্রেট মশিউর রহমান বলেন, অনুমোদনহীন পণ্য বিক্রি ও অবহেলার কারণে মীনা বাজারের এই শাখার ম্যানেজার সাঈদ সারওয়ার ও কর্মকর্তা সারওয়ার হোসেনকে দেড় লাখ টাকা করে ৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

কিছু বলার নেই মীনা বাজারের
এদিকে নিষিদ্ধ পণ্য বিক্রি ও জরিমানার বিষয়ে মীনা বাজারের লালবাগ এতিমখানা রোড শাখার ম্যানেজার সাঈদ সারওয়ারের বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে আমাদের কিছু বলার নেই।’

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »