বার্তাবাংলা ডেস্ক »

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তোমাদের মধ্যে যারা পাস করতে পারনি তারা হতাশ হবে না। অাবার মনোযোগ দিয়ে লেখাপড়া কর অাগামীতে ভালো ফলাফল করতে পারবে।

অভিভাবকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, অকৃতকার্য হওয়া ছেলে-মেয়েদের বকাঝকা করবেন না। তাদের বুঝিয়ে লেখাপড়া করতে বলবেন। অাগামীতে ওরা ভালো করবে।

অাজ রোববার সকালে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে ২০১৮ সালের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। এ সময় ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে বরিশাল ও বান্দরবান জেলার ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে হলে শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই। শিক্ষার জন্য আমরা গরীব ও মেধাবীদের মধ্যে থেকে ২ কোটি ৩ লাখ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি উপবৃত্তি দিচ্ছি।

বান্দরবানে মতবিনিময়কালে সেখানকার যাতায়াতের পরিস্থিতি তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখানকার রাস্তাঘাট পূর্বের তুলনায় যথেষ্ট উন্নত হয়েছে। এ জেলায় কিছু অাবাসিক স্কুল করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বরিশাল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহবুবা হোসেন, এসএসসি পরীক্ষার্থী অালী ইমাম কাফি ও দিলশাদ নওশীন মুনিরা এবং বান্দরবানের ছাত্রী পিকিওয়ে মার্মা ও ছাত্র অাবু তালহা জোবায়ের সঙ্গে কথা বলেন।

গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে শিক্ষা বোর্ডগুলোর ফলাফলের সারসংক্ষেপ তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। অনুষ্ঠানে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত অালী শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। শিক্ষা বোর্ডগুলোর ফল বিশ্লেষণের প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব সোহরাব হোসাইন। অনুষ্ঠানে শিক্ষাবোর্ডগুলোর চেয়ারম্যানরা উপস্থিত থেকে স্ব স্ব বোর্ডের ফলাফল হস্তান্তর করেন।

অাজ দুপুর ২টায় সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে ফলাফলের বিস্তারিত তুলে ধরবেন শিক্ষামন্ত্রী।

উল্লেখ্য গত ১-২৫ ফেব্রুয়ারি এসএসসি’র তত্ত্বীয় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ৪ মার্চ পর্যন্ত। এবার দেশের ৩ হাজার ৪১২টি কেন্দ্রে ২০ লাখ ৩১ হাজার ৮৮৯ পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছে।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »