বার্তাবাংলা ডেস্ক »

বিরল হরিণ মেরে কারাগারে যাওয়া বলিউড তারকা সালমান খান গতকাল বৃহস্পতিবার প্রথম দিন কাটিয়েছেন যোধপুর সেন্ট্রাল জেলে। বন্দী হিসেবে তাঁর নম্বর ১০৬। সেখানে ৫২ বছর বয়সী এই অভিনেতাকে রাতের খাবারে ডাল-রুটি দেওয়া হয়। তবে তিনি তা খাননি।

জেলের খাবার না খেলেও বাইরে থেকে কোনো খাবার আনাননি সালমান। আজ শুক্রবার এনডিটিভি অনলাইনের খবরে জানানো হয় এ তথ্য।
এই তারকাকে বন্দী করার বিষয়ে কারা তত্ত্বাবধায়ক বিক্রম সিং সাংবাদিকদের জানান, সালমান সাধারণ বন্দীর সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন কারাগারে। তাঁকে বিশেষভাবে দেখভাল করা হচ্ছে না। গতকাল রাতে সালমানের একজন দেহরক্ষী তাঁর জন্য পোশাক নিয়ে এসেছিলেন।
সালমান খানের সঙ্গে ওই একই কারাগারে রয়েছেন স্কুলছাত্রী ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত আধ্যাত্মিক নেতা আসারাম বাপু।

এর আগে গতকাল বিকেলে কারা তত্ত্বাবধায়ক জানান, সালমান খানকে রাতে সাধারণ বন্দীর মতো ডাল-চাপাতি এবং সকালে খিচুড়ি দেওয়া হবে। তাঁর জন্য জেল কুঠুরিতে সাধারণ কাঠের বিছানা, কম্বল ও শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র থাকছে।

কারা তত্ত্বাবধায়ক জানান, এই অভিনেতার উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা রয়েছে। গতকাল বিকেলে যখন তাঁকে কারাগারে আনা হয়, তখন তাঁর রক্তচাপ বেশি ছিল। কারাগারের চিকিৎসক তাঁকে পরীক্ষা করেছেন। পরে তাঁর রক্তচাপ স্বাভাবিক হয়ে আসে।
সালমান খানকে ২ নম্বর ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। এর পাশের কুঠুরিতে বন্দী হিসেবে রয়েছেন নিজেকে আধ্যাত্মিক ক্ষমতার অধিকারী দাবি করা আসারাম বাপু। তাঁর আশ্রমে ১৫ বছর বয়সী এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ২০১৩ সাল থেকে তিনি সেখানে বন্দী।
আরেক কারাগারে বন্দী লরেন্স বিষ্ণোই নামে একজন সন্ত্রাসীর সালমানকে হুমকি দেওয়ার ঘটনার বিষয়ে কারা তত্ত্বাবধায়ক বলেন, হুমকির বিষয়টি বিবেচনা করে সালমানকে আরও কয়েক বন্দীর সঙ্গে রাখা হতে পারে, যাতে তিনি একা না থাকেন।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »