বার্তাবাংলা ডেস্ক »

বাংলাদেশের জাতীয় দলে যে আর ফিরতে পারবেন, সে আশা হয়তো আব্দুর রাজ্জাক নিজেও করেননি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে ডাক পেলেও চট্টগ্রামে প্রথম ম্যাচে বসেছিলেন দর্শক হয়েই। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে প্রথম একাদশে জায়গা করে নিয়েছেন এই অভিজ্ঞ স্পিনার। আর মাঠে নেমে রাজ্জাক ভালোমতোই বুঝিয়ে দিয়েছেন যে, তিনি ফুরিয়ে যাননি। নিয়েছেন চারটি উইকেট। রাজ্জাকের সঙ্গে জ্বলে উঠেছেন তাইজুল ইসলামও। এই দুই স্পিনারের দারুণ বোলিংয়ে শ্রীলঙ্কার প্রথম ইনিংস গুটিয়ে গেছে মাত্র ২২২ রানে।

শ্রীলঙ্কার ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারেই আঘাত হেনেছিলেন রাজ্জাক। ৩ রান করে সাজঘরে ফিরেছেন লঙ্কান ওপেনার দিমুথ করুনারত্নে। ১৭তম ওভারে ধনঞ্জয় ডি সিলভার উইকেট তুলে নিয়েছেন তাইজুল ইসলাম। ২৮তম ওভারে শ্রীলঙ্কাকে জোড়া ধাক্কা দিয়েছেন রাজ্জাক। তুলে নিয়েছেন ধনুস্কা গুনাথিলাকা ও লঙ্কান অধিনায়ক দিনেশ চান্দিমালের উইকেট। দ্বিতীয় সেশনের শুরুতে আবারও জোড়া ধাক্কা খেয়েছে শ্রীলঙ্কা। ৩২তম ওভারে ৬৮ রান করা কুশল মেন্ডিসকে সাজঘরের পথ দেখিয়েছেন রাজ্জাক। আর পরের ওভারে তাইজুল ফিরিয়েছেন নিরোশান ডিকওয়েলাকে। অভিষিক্ত রোসেন সিলভা খেলেছেন ৫৬ রানের ইনিংস। শেষপর্যায়ে দিলরুয়ান পেরেরার ৩১ ও আকিলা ধনঞ্জয়ের ২০ রানের ছোট ইনিংস দুটিতে ভর করে স্কোরবোর্ডে ২২২ রান জমা করেছে শ্রীলঙ্কা।

বাংলাদেশের পক্ষে দারুণ বোলিং করে চারটি করে উইকেট নিয়েছেন রাজ্জাক ও তাইজুল। দুটি উইকেট গেছে মুস্তাফিজুর রহমানের ঝুলিতে।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রামে সিরিজের প্রথম টেস্টে টস জিতেছিল বাংলাদেশ। নিয়েছিল ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত। তবে ঢাকায় সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে আর টস-ভাগ্য যায়নি বাংলাদেশের পক্ষে। এবার টস জিতে শ্রীলঙ্কা নিয়েছে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত। ফলে শুরুতেই ফিল্ডিংয়ে নামতে হয়েছে মাহমুদউল্লাহদের।

দীর্ঘদিন পর জাতীয় দলে ফিরেছেন বাঁহাতি স্পিনার আবদুর রাজ্জাক। ২০১৪ সালে সর্বশেষ টেস্ট ম্যাচটি খেলেছিলেন তিনি। এ ছাড়া বাংলাদেশের প্রথম একাদশে ফিরেছেন সাব্বির রহমান।

বাংলাদেশ দল :
তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, লিটন দাস, সাব্বির রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, আবদুর রাজ্জাক, তাইজুল ইসলাম ও মুস্তাফিজুর রহমান।

শ্রীলঙ্কা দল :
দিমুথ করুনারত্নে, কুশল মেন্ডিস, ধনঞ্জয় ডি সিলভা, রোশান সিলভা, দিনেশ চান্দিমাল, নিরোশান ডিকওয়েলা, ধনুস্কা গুনাথিলাকা, দিলরুয়ান পেরেরা, আকিলা ধনঞ্জয়, রঙ্গনা হেরাথ ও সুরঙ্গা লাকমল।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »