‘১৯৬ কর্মকর্তার পদোন্নতি সন্দেহের সৃষ্টি করেছে’ : রুহুল কবির রিজভী

বিএনপি

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করেছেন, ‘ভোটারবিহীন’ সরকার দলীয়করণের মাধ্যমে গোটা প্রশাসনকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেছে। যোগ্য ও মেধাবী কর্মকর্তাদের পদোন্নতি থেকে বঞ্চিত করে অযোগ্য দলীয় লোকদের প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় বসাচ্ছে। তাঁর অভিযোগ, ‘সরকার গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ১৯৬ জন কর্মকর্তাকে যুগ্ম সচিব হিসেবে পদোন্নতির প্রজ্ঞাপন জারি করে সবমহলে রহস্য ও সন্দেহের সৃষ্টি করেছে।’

আজ শনিবার দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন রুহুল কবির রিজভী।

রিজভী বলেন, দলীয় লোকদের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দিয়ে এবং পদের তিনগুণের বেশি পদোন্নতি দিয়ে প্রশাসনের ভারসাম্য ভেঙে ফেলা হয়েছে। এসএসবির ফিট লিস্ট অনুযায়ী অনেক যোগ্য ও উপযুক্ত কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেওয়া হয়নি। এ ছাড়া আরও বেশ কিছু কর্মকর্তার নাম ফিট লিস্টভুক্ত করা হয়নি। তাঁর দাবি, ‘বারবার পদোন্নতি বঞ্চিত হওয়ায় হতাশ হয়ে কয়েকজন যোগ্য কর্মকর্তা আত্মহত্যাও করেছেন। যা জাতির জন্য খুবই লজ্জার।’

এ সময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরর উদ্দেশে রিজভী বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের বলেছেন যে তাঁদের দলই ভবিষ্যতে ক্ষমতায় আসবে। তাহলে কি আপনারা ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির ভোটারবিহীন নির্বাচনের মতো আরেকটি নির্বাচনের নীলনকশা প্রস্তুত করে রেখেছেন? আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের এই বক্তব্যে আগামী নির্বাচন নিয়ে শঙ্কা ও ষড়যন্ত্রের আভাস মেলে। এবারই দুঃশাসনের ঘন অন্ধকারের অবসান ঘটবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের উদ্দেশে রুহুল কবির রিজভী বলেন, বিএনপি নেতা-কর্মীদের বাইরেও সামরিক বাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা, আইনজীবী, রাষ্ট্রদূত, শিক্ষক, সাংবাদিক ও ব্যবসায়ী যারা গুম হয়েছেন—তাঁদের পরিবারও নিখোঁজ স্বজনদের অপেক্ষায় আছে। তাঁদের ফিরিয়ে দিন।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, হাবিব-উন নবী খান সোহেল, দলের চেয়ারপারসনের আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।