‘ব্যানারে শেখ মুজিবের ছবি ছাপালে জিয়াউর রহমানের ছবিও ছাপাতে হবে’

বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা পৌরসভার মেয়র শহিদুল ইসলামকে ধাওয়া দেওয়ার খবর পাওয়া গেছে। মুক্তাগাছা উপজেলা প্রেসক্লাবে শনিবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মেয়রের শাস্তি দাবি করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে মুক্তাগাছার সাবেক মেয়র মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই আকন্দ বলেন, “বিজয় দিবসে প্রতিবছর আমরা পৌরসভা চত্বরের স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাই। এ বছর অনুষ্ঠানের ব্যানারে বঙ্গবন্ধুর ছবি ছাপানো হয়নি।

“মেয়র শহিদুলকে এর কারণ জিজ্ঞেস করলে তিনি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করেন। শহিদুল বলেন, ‘ব্যানারে শেখ মুজিবের ছবি ছাপালে জিয়াউর রহমানের ছবিও ছাপাতে হবে। কারণ জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষক।’ তার এ কথায় উপস্থিত সবাই উত্তেজিত হয়ে মেয়রকে ধাওয়া করলে তিনি পালিয়ে যান।”

মেয়র শহিদুল মুক্তাগাছা শহর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক।

উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক আব্দুল জলিল ফারুক বলেন, “বিএনপিপন্থি মেয়র শহিদুল বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করে জাতিকে ছোট করেছেন।

“তার বিরুদ্ধে ময়মনসিংহ আদালতে আমি বাদী হয়ে আগামীকাল মানহানি মামলা করব। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় বরাবর লিখিত অভিযোগও করা হবে তদন্তসাপেক্ষে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য।”

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আবুল কাশেম বলেন, “বিএনপি-রাজাকারদের জন্য আজ দেশের সুনাম ক্ষুণ্ন হচ্ছে। আমাদের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে মেয়র শহিদুল বঙ্গবন্ধুকে জিয়াউর রহমানের সঙ্গে তুলনা করে অন্যায় করেছেন। তার শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত আমরা কোনোভাবেই শান্ত হব না।”

এ বিষয়ে মেয়র শহিদুলের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগেরর চেষ্টা করা হলেও তিনি সাড়া দেননি।

মুক্তাগাছার সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বদর উদ্দিন আহম্মেদ, শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবিএম জহিরুল হক, উপজেলা তাঁতি লীগের সভাপতি মুশফিকুর রহমান, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম বিটুল, জেলা আওয়ামী লীগনেতা কৃষিবিদ নজরুল ইসলাম সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।