বার্তাবাংলা ডেস্ক »

আন্তর্জাতিক ফুটবলে দুর্দান্ত এক মঞ্চ প্রস্তুত ছিল সেদিন। চির প্রতিদ্বন্দ্বীদের তাঁদের মাঠেই দর্শক বানিয়ে শিরোপা জেতার সুযোগ পেয়েছিলেন লিওনেল মেসি। কিন্তু আর্জেন্টিনার আরেক পুরোনো ‘শত্রু’ সেই স্বপ্ন বাস্তবে পরিণত হতে দেয়নি। নাহ, ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপের ফাইনালটা কখনোই ভুলবেন না লিওনেল মেসি।

বিশ্বকাপ ফাইনালে সেদিন জার্মানির কাছে ১-০ গোলে হেরে গিয়েছিল আর্জেন্টিনা। মেসি হারিয়েছিলেন অবিসংবাদিত সেরা হওয়ার দারুণ এক সুযোগ। কিন্তু তিনি পারেননি। আর্জেন্টিনার সেই পরাজয়ের পর ফুটবল থেমে থাকেনি, মেসিও থেমে থাকেননি। তবে এরপর আরও অনেক কিছুই ঘটে গেছে, দুটি কোপা শিরোপা হাতছাড়া হয়েছে আর্জেন্টিনার। হতাশায় মেসি আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় বলেছেন, আবার ফিরেছেনও। তিনজন কোচও বদল হয়েছেন। ২০১৮ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বটা বিবর্ণ গেলেও শেষপর্যন্ত চূড়ান্তপর্বের টিকিট কাটতে পেরেছে আর্জেন্টিনা।

বিশ্বকাপের টিকিট হাতে পেয়েই কোচ হোর্হে সাম্পাওলি যে কথাটি বলেছিলেন, মেসি তাতে এখন সম্মতিই দিচ্ছেন। সাম্পাওলি বলেছিলেন ফুটবলের কাছে মেসির একটি বিশ্বকাপ পাওনা। মেসি বলছেন, ঠিকই তো এমন একটা ক্যারিয়ারে একটি বিশ্বকাপ তিনি পেতেই পারেন।

ফিফা ডটকমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে হাসতে হাসতেই মেসি বলেছেন, ‘সাম্পাওলি কি বলেছেন তা আমি জানি। তিনি তো নিজেই কথাটা আমাকে জানিয়েছেন। আমি আশা করব ফুটবল আমার “পাওনা”টা দ্রুতই শোধ করে দেবে।’

মারকানা ফাইনাল এখনো দুঃস্বপ্নের মতো তাড়া করে ফিরছে বার্সেলোনা ফরোয়ার্ডকে, ‘আমার মনে হয় না আমি এটা কখনো ভুলতে পারব। এই দুঃস্বপ্নটা সঙ্গে নিয়েই বাঁচতে হবে আমাকে…বিশ্বকাপ সুন্দর কিছু স্মৃতি দেয়, কিন্তু এর মাঝে কিছু ভয়ানক কষ্টের স্মৃতিও থাকে।’

বারের বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে উঠতেই রীতিমতো কালো ঘাম ছুটে গেছে গত বিশ্বকাপের ফাইনালিস্টদের। শেষ ম্যাচে মেসির অমন জাদুকরী হ্যাটট্রিক না হলে কি হতো বলা মুশকিল। কিন্তু এরপর থেকেই নাকি দলের চেহারা একদম বদলে গেছে। হতাশা আর ব্যর্থতা ভুলে গোটা আর্জেন্টিনা দলই নাকি এখন দারুণ উজ্জীবিত, ‘ইকুয়েডরের বিপক্ষে সে ম্যাচের পর দলটা বদলে গেছে। সেই ম্যাচের সব ভয় আর দুশ্চিন্তা পেছনে ফেলে এসেছে আর্জেন্টিনা। দলের পুরো আবহাওয়াটাই পাল্টে গেছে।’

ফুটবলে নতুন করে আর কিছু প্রমাণ করার নেই মেসির। ক্লাব ফুটবলে সম্ভব সব ট্রফিই জিতেছেন। ব্যক্তিগত অর্জনও কম নয়। অপূর্ণতা ওই একটাই, দেশের হয়ে কোনো শিরোপা জিততে না পারা। সময়ের চাকা ঘুরে দরজায় কড়া নাড়ছে আরও একটি বিশ্বকাপ। মেসির পায়েই স্বপ্ন দেখছে তাঁর দেশ। ঘোচাতে চাইছে ২৪ বছরের শিরোপা বন্ধ্যাত্ব। সূত্র: মার্কা।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »