বার্তাবাংলা ডেস্ক »

ডেরায় নারীদের ধর্ষণ করে ‘শুদ্ধ’ করতেন বলে অনুসারীদের কাছে দাবি করতেন রাম রহিম। দুই অনুসারীকে ধর্ষণের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত ভারতের কথিত ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের বিরুদ্ধে আদালতে এমনই তথ্য দেন ধর্ষণের শিকার এক নারী। আরও অনেকের মতো এই নারীও রাম রহিমের ডেরার ‘সাধ্বী’ ছিলেন।

ওই নারী আদালতে বলেন, রাম রহিম নারী অনুসারীদের ধর্ষণের আগে বলতেন, তাঁরা পূর্বের কৃতকর্মের জন্য অপবিত্র হয়ে আছেন। তিনি ‘ঈশ্বর’, তাঁর সঙ্গে থাকলে ওই নারীরা ‘শুদ্ধ’ হবেন। পূর্বের কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা মিলবে এতে।

আদালতের রায়ে ওই নারীর উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়, ধর্ষণের ঘটনার আগে ওই নারীকে কিছু ‘সাধ্বী’ জিজ্ঞাসা করেছিলেন যে পিতাজি (রাম রহিম) তাঁকে ‘মাফি’ দিয়েছেন কি না? তবে সে সময় তিনি এ প্রশ্নের অর্থ বুঝতে পারেনি। ওই নারীদের কাছে মানে জানতে চাইলে তাঁরা হাসতেন।

১৯৯৯ সালের ২৮ ও ২৯ আগস্ট ওই নারীর ডাক পড়ে রাম রহিমের ডেরায়। সেদিন কী ঘটেছিল, তার বর্ণনা দেন ওই নারী। রাম রহিম তাঁকে ধর্ষণ করেন। আর এর পরেই তিনি বুঝতে পারেন ‘মাফি’র অর্থ কী।

দ্বিতীয়বার যখন রাম রহিমের কক্ষে ওই নারীর ডাক পড়ে, তিনি যেতে চাননি। পরে বাধ্য হয়ে তাঁকে যেতে হয়। তিনি সবকিছু তাঁর ভাইয়ের কাছে ফাঁস করে দেওয়ার হুমকি দেন রাম রহিমকে। ওই নারীর ভাইও রাম রহিমের ডেরায় থাকতেন। জবাবে রাম রহিম বলেন, তোমার ভাই এ কথা বিশ্বাস করবে না। আর যদি বিশ্বাস করে, তাহলে তাঁকে হত্যা করা হবে।

ওই নারী বলেন, দ্বিতীয়বারের প্রায় ছয় মাস পর আবারও রাম রহিমের কক্ষে ডাক পড়লে তিনি তাঁর ভাইকে সবকিছু খুলে বলেন। পরে ওই ভাই তাঁর আরও দুই বোনসহ ডেরা থেকে পালিয়ে যান।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »