বার্তাবাংলা ডেস্ক »

যৌনতা শুধু যে শারীরিক বা স্বাস্থ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত তা কিন্তু নয়। এর কারণে স্বাস্থ্যগত উন্নতির পাশাপাশি মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতাও বৃদ্ধি পায় কয়েক গুণ। আন্তর্জাতিক একটি গবেষণার ফল এ তথ্যই জানিয়েছে।

ব্রিটিশ অনলাইন ইন্ডিপেনডেন্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি ও কভেনট্রি ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক যৌথভাবে এই গবেষণা করেছেন। তাঁরা বলছেন, নিয়মিত যৌনতা মানুষের বুদ্ধি কয়েক গুণ বাড়িয়ে দেয়। বিশেষ করে বয়স্ক ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বাড়ায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, গবেষকেরা ২৮ জন পুরুষ ও ৪৫ জন নারীর ওপর এই গবেষণাটি চালিয়েছেন। অংশগ্রহণকারী এই ৭৩ জনের বয়স ৫০ থেকে ৮৩-এর মধ্যে। গবেষণা প্রতিবেদনটি দ্য জার্নাল অব জেরোন্টোলজি, সিরিজ বি: সাইকোলজিক্যাল অ্যান্ড সোশ্যাল সায়েন্সেসে প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষণা দলের প্রধান কভেনট্রি ইউনিভার্সিটিস সেন্টার ফর রিসার্চ ইন সাইকোলজি, বিহেভিয়র অ্যান্ড অ্যাচিভমেন্টের গবেষক হাইলে রাইট বলেন, ‘বয়স্কদের জন্য যৌনসম্পর্ক শুধু যৌনতার জন্য নয়। এর প্রভাবে তাঁদের মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বেড়ে যায়।’

প্রতিবেদনে বলা হয়, গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ৩৭ জন জানিয়েছেন, তাঁরা সপ্তাহে অন্তত একবার শারীরিক সংসর্গ করেন, ২৬ জন মাসে একবার আর ১০ জন এই বয়সে কখনোই শারীরিক সম্পর্ক করেননি। এই অংশগ্রহণকারীদের মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা পর্যবেক্ষণ করা হয়। গবেষণায় দেখা গেছে, মাসে একবার শারীরিক সম্পর্ক করা ব্যক্তিদের চেয়ে বেশিবার শারীরিক সম্পর্ক করা ব্যক্তিরা বুদ্ধির দিক থেকে দুই পয়েন্ট এগিয়ে রয়েছেন। আর যাঁরা ৫০ থেকে ৮৩ বছর বয়সের মধ্যে কখনোই শারীরিক সম্পর্ক করেননি তাঁদের চেয়ে মাঝে মাঝে শারীরিক সম্পর্ক করা ব্যক্তিরা চার পয়েন্ট এগিয়ে রয়েছেন।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, গবেষণায় দেখা গেছে, যাঁরা নিয়মিত শারীরিক সংসর্গ করেন তাঁরা কথা বলায় অনেকটা পারদর্শী হন। যৌনতার ক্ষেত্রে সক্ষম ব্যক্তিদের দৃষ্টিশক্তিও প্রখর হয়। তাঁরা জটিল ও এলোমেলো কোনো নকশা বা অঙ্কিত চিত্র খুব সহজেই মিলিয়ে ফেলতে পারেন। তাঁদের স্মৃতিও প্রখর হয়।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, যৌনতার সঙ্গে মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতার কারণ সম্পর্কে গবেষকেরা বিস্তারিত কিছু বলেননি। তবে তাঁরা বলেছেন, যৌনতার কারণে নিউরোহরমোন বিশেষ করে ডোপামিন বা অক্সিটোসিন নির্গত হয়ে তা মস্তিষ্কে বার্তা পাঠায়। এর কারণেই হয়তো তা ঘটে। তবে এ নিয়ে বিস্তর গবেষণা করতে হবে।

গবেষক হাইলে রাইট বলেন, ‘আমার ধারণা করি যৌনতার সঙ্গে শুধু সামাজিক ও শারীরিক বিষয়গুলো জড়িত। কিন্তু তা নয়। এর সঙ্গে অনেক কিছুই জড়িত। শরীরবৃত্তীয় কার্যকলাপও জড়িত যা যৌনতার কারণে প্রভাবিত হয়, বিশেষ করে বয়স্ক ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে। আর এসব নিয়ে আরও অনেক গবেষণা করা যেতে পারে।’

হাইলে রাইট আরও বলেন, ‘বয়স্ক মানুষেরা শারীরিক সংসর্গ করবেন—সাধারণ মানুষ এই চিন্তাটা করতেই পারে না। এই ধারণা থেকে বের হয়ে আসতে হবে। কারণ শারীরিক সংসর্গের কারণে পঞ্চাশোর্ধ্ব মানুষের স্বাস্থ্য ভালো থাকে ও মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বেড়ে যায়। আর সবচেয়ে বড় কথা হলো ওই বয়সেও তাঁরা সুখী জীবনযাপন করতে পারেন।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »