বার্তাবাংলা ডেস্ক »

বগুড়ায় ছাত্রী ধর্ষণ ও পরে মাসহ ওই ছাত্রীকে নির্যাতনের মামলায় ঘটনার মূল হোতা তুফান সরকার, তাঁর স্ত্রী ও শাশুড়িকে নতুন করে রিমান্ডে চাইবে পুলিশ।

আজ বুধবার ধর্ষণের মামলায় তুফানের তিন দিনের রিমান্ড শেষ হচ্ছে। আর নির্যাতনের মামলায় তুফানের স্ত্রী আশা সরকার ও শাশুড়ি রুমি বেগমের দুই দিনের রিমান্ড শেষ হচ্ছে।

বগুড়ার পুলিশের সুপার মো. আসাদুজ্জামান বলেন, আসামিরা রিমান্ডে উল্লেখযোগ্য কোনো তথ্য না দেওয়ায় ফের তাঁদের সাত দিন করে রিমান্ড চাওয়া হবে। বগুড়ার অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম শ্যামসুন্দর রায়ের আদালতে তাঁদের হাজির করা হবে। গত ১৭ জুলাই বিকেলে কলেজে ভর্তি-ইচ্ছুক ছাত্রীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেন বগুড়ার শহর শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক তুফান সরকার। বিষয়টি ধামাচাপা দিতে তিনি ও তাঁর সহযোগীরা দলীয় ক্যাডার ও এক নারী কাউন্সিলরকে ধর্ষণের শিকার মেয়েটির পেছনে লেলিয়ে দেন। চার ঘণ্টা ধরে তাঁরা ছাত্রী ও তার মায়ের ওপর নির্যাতন চালান। এরপর দুজনেরই মাথা ন্যাড়া করে দেন।

এ ঘটনায় কিশোরীর মা বাদী হয়ে ২৮ জুলাই রাতে শ্রমিক লীগ নেতা তুফান সরকার, তাঁর স্ত্রী আশা সরকার, আশা সরকারের বড় বোন বগুড়া পৌরসভার সংরক্ষিত ওয়ার্ডের নারী কাউন্সিলর মার্জিয়া আক্তারসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগে দুটি মামলা করেছেন। এর মধ্যে নয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »