মৌলভীবাজারে ট্রেনের ইঞ্জিনসহ বগি লাইনচ্যুত !! সাড়ে ১৩ঘন্টা যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন » Leading News Portal : BartaBangla.com

বার্তাবাংলা ডেস্ক »

এস এ চৌধুরী, মৌলভীবাজার::মৌলভীবাজারে ট্রেনের ইঞ্জিনসহ ৬টি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। সিলেটের সাথে সারা দেশের ট্রেন যোগাযোগ সাড়ে১৩ ঘন্টা বিচ্ছিন্ন ছিল । আটকেপড়া যাত্রীদের শাটল ট্রেন উদ্ধার করে । এতে কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি । দুর্ঘটনাকবলিত ট্রেনটি উদ্ধার করে বিকেল সাড়ে পাচ ঘ: সময় ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।  শমশেরনগর রেলওয়ে ষ্টেশন সূত্রে জানা যায়,সিলেট-আখাউড়া রেল পথের ঢাকা থেকে সিলেটগামী আন্তঃনগর উপবন এক্সপ্রেস ৭৩৯ নং আপ ট্রেন জেলার কুলাউড়া উপজেলার বরমচাল রেলওয়ে ষ্টেশনের পাশ্ববর্তী আলফানা খালের ওপর রেলওয়ের ব্রিজ নং ৭ এ নামক জায়গায় রেল লাইনের কয়েকটি ফিস প্লেইট খোলা থাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ইঞ্জিনসহ ছয়টি বগি লাইনচ্যুত হয়। বিষয়টির প্রসঙ্গে শমশেরনগর রেলওয়ে ষ্টেশন মাষ্টার ১ মোঃ শাহজাহান সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, উপবন ট্রেনটি ভোর সাড়ে তিনটায় শমশেরনগর ষ্টেশন অতিক্রম করে এবং বরমচাল ষ্টেশনে ঢোকার আগে আউটারে রেল লাইনের কয়েকটি ফিস প্লেইটের নাট বল্টু কে বা কাহারা খোলে রাখার ফলে ইঞ্জিনসহ ৬টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে দুর্ঘটনার শিকার হয় । আমরা জানার জন্য যোগাযোগ করলেও ব্যস্ততার অজুহাত দেখিয়ে কেউ কিছু বলতে চাইছেনা । কুলাউড়া রেলওয়ে ষ্টেশনে জানার চেষ্ঠা করলে ইব্রাহীম নামীয় ব্যক্তি কুলাউড়া ষ্টেশনের সহকারী ষ্টেশন মাষ্টার হরিপদ সরকারের সাথে কথা বলার পরামর্শ দিলে হরিপদ সরকারের মুঠোফোনে অনেকবার রিং হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি। বরমচাল রেলওয়ে ষ্টেশনের ষ্টেশন মাষ্টার হাবিবুর রহমানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে দুর্ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বার্তা বাংলাকে বলেন, ভোর ৪.১০মিনিটে আমি লাইন ক্লিয়ার দিয়েছি এবং কুলাউড়া ষ্টেশন থেকে ৪.২৫মিনিটে উপবন ট্রেনটি ছেড়ে আসে । কুলাউড়া ষ্টেশন থেকে আমার ষ্টেশনে আসতে রানিং টাইম ১২-১৫ মি: সময় লাগে, সে হিসেবে ৪.৪০মি: আসার কথা কিন্তু ৪.৪০মি: ট্রেনের আওয়াজ শুনলেও কিছুক্ষণ পর আওয়াজও শুনিনা ট্রেনও দেখিনা। ৪.৪৫মি: পর্যন্ত অপেক্ষা করে ট্রেনটি ষ্টেশনে না আসাতে কন্ট্রোলে ফোন করে জানতে পারি ট্রেনটি দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে এই হলো আমার প্রাথমিক জানা । পরবর্তীতে কুলাউড়ায় ফোন করে জানতে পারি । এরপর থেকে উভয়েই ব্যবস্থাপনায় ব্যস্ত  তাদের সাথে তো কথা বলা যায়না। সিলেট থেকে একটি ইমার্জেন্সী শাটল ট্রেন সকাল ৭.৫৫মি: বরমচাল ষ্টেশনে এসে আটকে পড়া ট্রেন যাত্রীদের সিলেটের উদ্দেশ্যে নিয়ে যায় বলে তিনি (হাবিবুর রহমান) আরো বলেন,এর বেশি কিছু জানিনা । লাইনচ্যুত ট্রেনটি উদ্ধারের জন্য আখাউড়া থেকে একটি রিলিফ ট্রেন এসেছে জানিয়ে এবং বিভিন্ন প্রশ্নোত্তরে তিনি(হাবিবুর রহমান) বলেন, বরমচাল ষ্টেশন থেকে ট্রেন দুর্ঘটনাস্থল দুই-আড়াই কিলোমিটার দুরত্ব। আউটার টু আউটার আমার সীমানার মধ্যে । তবে উদ্ধার কাজ নিকটবর্তী যেখান থেকে সহজ সেখান থেকে করা হয়ে থাকে । সকাল বেলা অনেক যাত্রী আমার ষ্টেশনে আসলে তাদের কাছ থেকে জেনেছি কোনো লোক আহত বা নিহত হয়নি তবে একটু ঝাকুনি লেগেছে বলে অনেকে জানিয়েছেন। কুলাউড়া বিষয়টি দেখছে,কুলাউড়ার ষ্টেশন মাষ্টারের সাথে কথা বলার পরামর্শ দিয়ে আরো বলেন, আমাদের একটি পার্মানেন্ট(স্থায়ী) কমিটি রয়েছে । উনারা তদন্ত করবেন এবং প্রয়োজনে হায়ার অথরিটি  (উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ)কে অবহিত করবেন। কুলাউড়া ষ্টেশন মাষ্টার মুহিদুর এর সাথে মুঠোফোনে (০১৮২২-৯৫৭৬৭২)অনেকবার যোগাযোগের চেষ্ঠা করে মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায় । পরবর্তী দফায় চেষ্ঠার পর কয়েকবার রিং হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি। এদিকে শমশেরনগর ষ্টেশন মাষ্টার শাহজাহান বলেন, ট্রেনটি উদ্ধার করে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হলে এই মাত্র সাড়ে পাচটায় আমার ষ্টেশন হতে একটি ট্রেন অতিক্রম করে।

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

আমি ফারজানা চৌধুরী তন্বী। লেখালিখি করি ফারজানা তন্বী নামে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করার পর আজ প্রায় পাঁচ বছর ধরে লেখালিখির সঙ্গেই আছি। বার্তাবাংলা’য় কাজ করছি সিনিয়র রিপোর্টার হিসেবে। আমার বিশেষ আগ্রহের ক্ষেত্র ফিচার, প্রযুক্তি আর লাইফস্টাইল। ভালো লাগে ভ্রমণ, বইপড়া, বাগান করা আর ইন্টারনেট নিয়ে পড়ে থাকা :)

মন্তব্য করুন »