শাহবাগে পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষ : আহত ৩

পুলিশের বাধার মুখে পণ্ড হয়ে গেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অধিভুক্ত রাজধানীর সাতটি কলেজের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন। এ সময় পুলিশের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশের ছোড়া টিয়ারশেলে তিনজন আহত ও এক শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে।

সেশনজট ও বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত না হওয়ায় পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে শাহবাগে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা। পুলিশ তাদেরকে সড়ক ছেড়ে জাতীয় জাদুঘরের সামনে অবস্থান নিতে বলে। তবে দুপুর ১১টার দিকে পুনরায় শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে এবং পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

এ সময় এক পথচারীসহ দুই শিক্ষার্থী আহত হয়। এ ছাড়া ঢাকা কলেজের অর্থনীতি বিভাগের (২০১২-১৩ সেশন) ছাত্র সিফাত হোসেনকে আটক করা হয়।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ক আতিকুল ইসলাম বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করছিলাম। কিন্তু পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে আমাদের সরিয়ে দেয়। এতে আমাদের দুই শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। একজনকে আটক করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, দাবি আদায়ে তারা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যাবেন। এ জন্য পুলিশের অনুমতির অপেক্ষায় রয়েছেন।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হওয়ার ৫ মাসেও পরীক্ষা কবে হবে, একাডেমিক সিলেবাস কী হবে, পরীক্ষা পদ্ধতি কেমন হবে, প্রশ্নের ধরন বা মানবন্টন কেমন হবে? -এসব বিষয়ে কোন তথ্য বা নির্দেশনা তারা পায়নি।

শিক্ষার্থীদের সাত দফা দাবি হলো-

অধিভুক্ত হওয়া কলেজসমূহের ব্যাপারে নীতিমালা প্রণয়ন এবং প্রকাশ (একাডেমিক সিলেবাস, পরীক্ষা পদ্ধতি, প্রশ্নের ধরন, প্রশ্নের মানবন্টন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে কলেজসমূহের সম্পর্ক ইত্যাদি); সম্মান ২য় ও ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের মৌখিক/ব্যাবহারিক পরীক্ষা অল্প সময়ে সম্পন্ন করে দ্রুত ফল প্রকাশ; সম্মান ৩য় বর্ষ এবং মাস্টার্স শেষ পর্বের পরীক্ষা দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রহণ; ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স শেষ পর্বের ভর্তি কার্যক্রম দ্রুত সম্পন্ন করা; ডিগ্রীর আটকে থাকা সকল বর্ষের পরীক্ষা দ্রুত সম্পন্ন করা; অধিভুক্ত কলেজসমূহের সকল তথ্য সংবলিত একটি ওয়েবসাইট তৈরি; শিক্ষার মান উন্নয়ন এবং সেশনজট নিরসনে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ।