বনানীর ধর্ষণ মামলার অভিযোগপত্র আদালতের আমলে

রাজধানীর বনানীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রী ধর্ষণের মামলার অভিযোগপত্র গ্রহণ করেছেন আদালত। আজ সোমবার ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২–এর বিচারক শফিউল আজম এই অভিযোগপত্র আমলে নেন।

আগামী ৯ জুলাই মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানির তারিখ ঠিক করা হয়েছে। এর আগে এই মামলায় গ্রেপ্তার পাঁচ আসামিকে আজ আদালতে হাজির করে পুলিশ।

ওই ট্রাইব্যুনালের স্টেনোগ্রাফার নাজমুল হাসান এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে ৮ জুন এ ধর্ষণ মামলায় অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। অভিযোগপত্রে আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে শাফাত আহমেদ ও তাঁর বন্ধু নাঈম আশরাফ ওরফে আবদুল হালিমের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়েছে। শাফাতের বন্ধু সাদমান সাকিফ, গাড়িচালক বিল্লাল হোসেন ও তাঁর দেহরক্ষী রহমত আলীর বিরুদ্ধে ধর্ষণে সহায়তার অভিযোগ আনা হয়।

মামলার অভিযোগপত্রে বলা হয়, জন্মদিনের পার্টির কথা বলে গত ২৮ মার্চ রাতে বনানীর রেইনট্রি হোটেলে ডেকে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া দুই তরুণীকে ধর্ষণ করেন শাফাত ও তাঁর বন্ধু নাঈম আশরাফ। ১২ এই জুন মামলাটি বিচারের জন্য এই ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়।

এর আগে থানায় মামলা হওয়ার পাঁচ দিন পর গত ১১ মে সিলেট থেকে শাফাত ও সাদমানকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর ১৫ মে শাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল ও দেহরক্ষী রহমত ঢাকায় গ্রেপ্তার হন। সবশেষ ১৭ মে মুন্সিগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করা হয় নাঈম আশরাফকে, যিনি সেখানে এক আত্মীয়ের বাড়িতে লুকিয়ে ছিলেন। এই পাঁচজনের মধ্যে গাড়িচালক বিল্লাল ছাড়া অন্য চার আসামিই নিজেদের দায় স্বীকার করে আদালতের হাকিমের কাছে জবানবন্দি দেন।