আসমা সুলতানা চৈতি »

অনেক সময় দেখা যায় কোনো কারণ ছাড়াই ঠোঁট শুকিয়ে যায়। অসুস্থ না কিংবা ঠান্ডাও লাগেনি, তারপরও ঠোঁট শুকিয়ে যাচ্ছে! এমন ঘটনা প্রায়ই আমাদের সাথে হয়ে থাকে। তবে এতে চিন্তার কিছু নেই। এটি দৈনন্দিন কিছু অভ্যাসের কারণেই হচ্ছে। আসুন জেনে নেই এমন কিছু অভ্যাসের কথা যার কারণে ঠোঁট শুকিয়ে যায়।

১. পানি পান না করা
আপনি যদি পর্যাপ্ত পানি পান না করেন তাহলে আপনার ঠোঁট শুষ্ক হয়ে ফেটে যেতে পারে। বাহিরে যাওয়ার সময় পানির বোতল সাথে নিন এবং নিয়মিত পান করুন পানি।

২. গরম পানিতে গোসল
গরম পানি ত্বক সুরক্ষাকারী তেলকে দূর করে দেয়, ফলে ত্বক হয়ে ওঠে শুষ্ক ও আঁটসাঁট এবং চুলকানির প্রবণতা তৈরি হয়। তাই খুব গরম পানির পরিবর্তে কুসুম গরম পানি ব্যবহারের পরামর্শ দেন তিনি।

৩. অনেক বেশি চা বা কফি পান করা
অনেক বেশি চা বা কফি পান করলে ঠোঁট শুকিয়ে যেতে পারে। ক্যাফেইন যুক্ত পানীয় পানিশূন্যতা সৃষ্টি করতে পারে বলে চা বা কফি পান করার পর আপনার তৃষ্ণা পায়। অনেক বেশি ক্যাফেইনযুক্ত পানীয় পান করলে আপনার ঠোঁট খসখসে হয়ে যায় বা ফেটে যায়।

৪. টুথপেস্ট
নিয়মিত দাঁত ব্রাশ করলে দাঁতে ছিদ্র হয়না এবং মুখের স্বাস্থ্য ভালো থাকে। কিন্তু ভুল টুথপেস্ট ব্যবহার করলে আপনার ঠোঁটের ক্ষতি হতে পারে। যদি আপনার টুথপেস্টের কারণে আপনার ঠোঁট শুষ্ক হয়ে যায় তাহলে আপনি এটি পরিবর্তন করে অন্য টুথপেস্ট ব্যবহার করতে পারেন।

৫. লবণাক্ত খাবার
লবণাক্ত খাবার আপনার ঠোঁটকে শুষ্ক করে দেয়। যদি আপনি চিপস জাতীয় লবণাক্ত খাবার খান তাহলে আপনার ঠোঁট শুকিয়ে যেতে পারে।

৬. ঔষধের কারণে
ঔষধের কারণেও মুখ শুষ্ক হয়ে যেতে পারে। অ্যান্টিডিপ্রেশন, অ্যান্টিহিস্টামিন, উদ্বিগ্নতা দূরকারী ঔষধ, ডিকঞ্জেস্টেন্ট, পেশীকে শিথিল করার ঔষধ এবং ব্যথার ঔষধ গ্রহণ করলে এমন হতে পারে।

৭. লিপস্টিক
কিছু লিপস্টিক ও লিপবাম ব্যবহারের ফলে আপনার ঠোঁট শুষ্ক হয়ে খসখসে হয়ে যেতে পারে। তাই ভালো মানের লিপস্টিক ব্যবহার করুন।

৮. মুখ দিয়ে শ্বাস নেয়া
নাকের পরিবর্তে মুখ দিয়ে শ্বাস নিলেও ঠোঁট শুষ্ক হয়ে যায়। নাক বন্ধ থাকলে নাকের ড্রপ ব্যবহার করতে পারেন।

৯. ঠোঁট চাটা
ঠোঁট চাটলে ঠোঁট শুষ্ক হয়ে যেতে পারে যা শুনে উল্টো মনে হতে পারে আপনার। লালাতে যে এনজাইম থাকে তা ত্বককে শুষ্ক করে দেয়। তাই ঠোঁট চাটার অভ্যাস পরিত্যাগ করুন।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »