রোজা রাখার বৈজ্ঞানিক সুবিধা

রোজা স্বাস্থ্যের জন্য নানা দিক দিয়েই ইতিবাচক। যা অনেককেই রোজা রাখতে উদ্ধুদ্ধ করে। কিন্তু মুসলিমদের বিষয় ভিন্ন। পবিত্র গ্রন্থ কোরআনে আল্লাহর দেয়া নির্দেশ অনুযায়ী তাদের রোজা রাখতে হয়। রোজা রাখলে যে নানা স্বাস্থ্য সুবিধা পাওয়া যায় তা একাধিক বৈজ্ঞানিক গবেষণাতেও প্রমাণিত হয়েছে। নিচে সেসবের কয়েকটি উল্লেখ করা হলো :

ডায়াবেটিকসের ঝুঁকি কমে:

ডায়াবেটিকস আক্রান্তদের ক্যালরি গ্রহণে সবসময় সতর্ক থাকতে হয়। আর রোজা থাকলে ক্যালরি গ্রহণে বিকল্প একটি নিষেধাজ্ঞা কাজ করে। এটি ডায়াবেটিকস সংক্রান্ত স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

চর্বি কমাতে সহায়তা করে:

চর্বি কমাতে মানুষ কত কসরতই না করে। জিমে যায়, প্রিয় খাবারগুলো খেতে পারে না, নিয়ম করে দৌড়ায়, আরও কত কিছু। কিন্তু অল্প সময়ের জন্য রোজা রাখলেও বিপাক ক্রিয়া ৩.৬ থেকে ১৪ ভাগ বেড়ে যায়। যা চর্বি কমাতে সক্রিয় ভূমিকা রাখে।

রোজা বার্ধক্যকে দূরে রাখে:

বার্ধক্য ভয় পায় না এমন মানুষ কমই পাওয়া যাবে। বার্ধক্য শরীর-মন দুটোকেই ভারাক্রান্ত আর অসহায় করে তোলে। রোজা রাখলে আয়ু বাড়ে এবং এটি বার্ধক্য সংশ্লিষ্ট সমস্যাগুলোকে দূরে রাখে।

মস্তিষ্কের জন্যও রোজা উপকারী:

রোজা রাখলে নতুন স্নায়ু কোষগুলোর বৃদ্ধি দ্রুততর হয়। এতে মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বাড়ে। এছাড়া রোজা রাখলে হরমোনের বৃদ্ধিও দ্রুত হয়। দুই দিন রোজা রাখলেই শরীরে হরমোন বাড়ার হার পাঁচ গুণ বাড়ে।