যৌথ প্রযোজনার নামে প্রতারণার বিরুদ্ধে এক হয়ে কাজ করার সিদ্ধান্ত

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন (বিএফডিসি) ভিত্তিক ১৪টি সংগঠনের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে আজ শুক্রবার। এ সময় সবাই মিলে এক হয়ে চলচ্চিত্রের সমস্যা সমাধানে কাজ করার কথা বলেন। চলচ্চিত্রে যৌথ প্রযোজনার নামে প্রতারণার বিরুদ্ধেও এক হয়ে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বৈঠকে। মুক্তির অপেক্ষায় থাকা নতুন যৌথ প্রযোজনার ছবিগুলো কতটুকু নিয়ম মেনে করা হয়েছে, সেটিও খতিয়ে দেখার কথা বলেন নেতৃবৃন্দ। আর শিগগিরই এফডিসির ১৪টি সংগঠন মিলে নতুন একটি কমিটি গঠন করার ঘোষণাও দেওয়া হবে বলে জানান নেতারা।

যৌথ প্রযোজনার ছবিতে দুই দেশের পরিচালক ও প্রযোজনা সংস্থার নাম নিয়ে অসংগতি প্রসঙ্গে সম্প্রতি একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে এনটিভি অনলাইন। সেটির সূত্র ধরে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, “আমরা এনটিভি অনলাইনের একটি খবর পড়ে বিষয়টি জেনেছি। এখন যদি বাংলাদেশে কলকাতার পরিচালকের নাম থাকে আর কলকাতায় আমাদের পরিচালকের নাম না থাকে, তাহলে কলকাতার পরিচালক আমাদের দেশে নিজের অবস্থান তৈরি করছে; কিন্তু কলকাতায় আমরা কোনো অবস্থান পাচ্ছি না। এটা কতটা যৌথ প্রযোজনার নিয়ম মেনে করা হয়েছে, তা আমরা খতিয়ে দেখব। এ ছবি দুটি (‘নবাব’ ও ‘বস-২’) এখনো সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পায়নি। বোর্ডে যাওয়ার আগে যৌথ প্রযোজনার প্রিভিউ কমিটি বিষয়গুলো খতিয়ে দেখবে, আমরা তখন বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলব।”

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, ‘আমাদের শিল্পী অর্ধেক নিতে হবে, তা যৌথ প্রযোজনার নীতিমালায় আছে। সে ক্ষেত্রে আমরা জেনেছি যে এই দুটি ছবিতে আমাদের শিল্পী তেমন কেউ নেই। আমাদের যৌথ প্রযোজনার প্রিভিউ কমিটি আছে। তাঁরা হয়তো বাংলাদেশের সব শিল্পী নাও চিনতে পারেন, তাই প্রিভিউ হওয়ার সময় আমরা দেখব আমাদের কতজন শিল্পী কাজ করেছেন ওসব ছবিতে। আমাদের শিল্পীদের অধিকার কেড়ে নিয়ে বাংলাদেশের আর একটি যৌথ প্রযোজনার ছবিও মুক্তি পাবে না।’

সহকারী চিত্রপরিচালক সমিতির সভাপতি এস আই ফারুক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘যৌথ প্রযোজনার ছবিতে আমাদের একজন পরিচালকের নাম যায়, কিন্তু তিনি আসলে পরিচালনা করেন কি না তা সবাই জানেন, আবার কিছু শিল্পীও নেওয়া হয় কাজ করার জন্য। কিন্তু আমাদের এফডিসির কলাকুশলীরা সেখানে কাজ করতে পারেন না। যৌথ প্রযোজনার নীতিমালা কখনই আমাদের স্বার্থের বাইরে হতে পারে না। এখন থেকে আমরা ১৪টি সংগঠন এক হয়ে সব অনিয়মের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াব।’

আসন্ন ঈদে মুক্তি পেতে যাচ্ছে যৌথ প্রযোজনার দুই ছবি। শাকিব খান অভিনীত ‘নবাব’ ও কলকাতার জিৎ অভিনীত ‘বস-টু’। দুটি ছবিই যৌথভাবে প্রযোজনা করেছে বাংলাদেশের জাজ মাল্টিমিডিয়া। জাজের ইউটিউব চ্যানেলে ‘নবাব’ ছবির যে ট্রেইলার রয়েছে, সেখানে পরিচালক হিসেবে জয়দেব মুখার্জি ও আবদুল আজিজের নাম থাকলেও কলকাতার এসকে মুভিজের ইউটিউব চ্যানেলে আবদুল আজিজের নাম নেই। আবার জাজের ‘বস-টু’ ছবির ট্রেইলারে বাবা জাদব ও আবদুল আজিজের নাম আছে। কিন্তু কলকাতার জিৎ’স ফিল্মওয়ার্কস প্রাইভেট লিমিটেডের ইউটিউব চ্যানেলে আছে শুধু কলকাতার পরিচালকের নাম। বাংলাদেশি শিল্পী বলতে ‘নবাব’ ছবিতে অমিত হাসান আর কমল রয়েছেন। ‘বস-টু’ ছবিতে বাংলাদেশ থেকে আছেন নুসরাত ফারিয়া, আমিত হাসান ও সীমান্ত। এ ছাড়া আর কোনো বাংলাদেশি শিল্পীকে ছবি দুটির ট্রেইলারে দেখা যায়নি।