পেটের কৃমি দূর করুন ৭টি ঘরোয়া উপায়ে

কৃমি হলো এক ধরনের পরজীবী যা দেহের অন্ত্রে বাস করে। কৃমি ছোট বড় উভয়ের হতে পারে। এমনকি শুধু মানুষ নয় অন্যান্য প্রাণীর শরীরেও কৃমি দেখা দিতে পারে। কৃমি খাবার, পানি, ত্বক, নাক বিভিন্ন মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করতে পারে। সারা বিশ্বের মানুষ কৃমি দ্বারা আক্রান্ত হলেও গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং উপ-গ্রীষ্মমন্ডলীয় অঞ্চলের মানুষেরা এটি দ্বারা বেশি আক্রান্ত হয়। সাধারণত কৃমি দূর করার জন্য ওষুধ খাওয়া হয়। তবে কিছু ঘরোয়া উপায়ে এই কৃমি দূর করা সম্ভব। আসুন জেনে নিই সেই উপায়গুলো।

১. কাঁচা পেঁপে

কাঁচা পেঁপে কৃমি দূর করতে বেশ কার্যকর। এক টেবিল চামচ কাঁচা পেঁপের জুস এবং তিন বা চার টেবিল চামচ মধু গরম পানিতে মেশান। এটি খালি পেটে সকালে পান করুন। দুই ঘন্টা পর এক গ্লাস কুসুম গরম দুধের সাথে দুই টেবিল চামচ ক্যাস্টর অয়েল মিশিয়ে পান করুন। এটি দুই থেক তিন দিন পান করুন। এছাড়া দুই চা চামচ পেঁপের বীচি গুঁড়ো এক কাপ কুসুম গরম দুধ বা পানিতে মিশিয়ে খালি পেটে সকালে পান করুন। এটি পরপর তিনদিন পান করুন।

২. নারিকেল

পেটের কৃমি দূর করতে নারকেল খেতে পারেন। প্রতিদিন সকালের নাস্তায় এক টেবিল চামচ নারিকেল কুচি খান। ৩ ঘন্টা পর এক গ্লাস গরম দুধের সাথে দুই টেবিল চামচ কাস্টর অয়েল মিশিয়ে পান করুন। এছাড়া চার থেকে ছয় চা চামচ বিশুদ্ধ নারিকেল তেল খেতে পারেন।

৩. রসুন

রসুন অ্যান্টি-প্যারাসাইটিক খাবার যা কৃমি দূর করতে সাহায্য করে। কাঁচা রসুনের অ্যামিনো অ্যাসিড পেটের কৃমি মেরে ফেলে। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে ৩ কোয়া রসুন খান। নিয়মিত এক সপ্তাহ এটি খান। এছাড়া আধা কাপ পানিতে দুটি রসুনের কোয়া দিয়ে সিদ্ধ করুন। এটি খালি পেটে পান করুন। এক সপ্তাহ এটি পান করুন।

৪. মিষ্টি কুমড়োর বীচি

ইউনিভার্সিটি অফ ম্যারিল্যান্ড সেন্টার মিষ্টি কুমড়োর বীচি পেটের কৃমি দূর করতে বেশ কার্যকরী। দুই টেবিল চামচ মিষ্টি কুমড়োর বীচির গুঁড়ো তিন কাপ পানিতে ৩০ মিনিট ধরে সিদ্ধ করুন। সকালে খালি পেটে খাওয়ার চেষ্টা করুন। এছাড়া এক টেবিল চামচ মিষ্টি কুমড়োর বীচির গুঁড়োর সাথে সমপরিমাণের মধু মিশিয়ে নিন। খালি পেটে এটি খান। তারপর নাস্তায় একটি কলা খেতে পারেন।

৫. নিম

এক টেবিল চামচ নিমের ফুল এবং এক চা চামচ গলানো মাখন বা ঘিয়ের সাথে মিশিয়ে নিন। এটি ভাতের সাথে খান। টানা চারদিন এটি খান। এছাড়া এক গ্লাস কুসুম গরম দুধ বা পানি এক চা চামচ নিমের গুঁড়ো মিশিয়ে পান করুন এটি দিনে দুইবার করে এক সপ্তাহে পান করুন। গর্ভবতী নারীরা নিম খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।

৬. গাজর

দুটি গাজর কুচি করে নিন। এটি প্রতিদিন খালি পেটে খান। অন্য খাবার সকালে খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। এটি প্রতিদিন খান। কিছুদিনের মধ্যে কৃমি কমে যাবে। গাজরের বিটা ক্যারটিন, ভিটামিন এ, ভিটামিন সি এবং জিঙ্ক আছে যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে পেটের কৃমি মেরে ফেলে।

৭. লবঙ্গ

এক চা চামচ লবঙ্গের গুঁড়ো এক কাপ কুসুম গরম পানিতে মিশিয়ে নিন। এটি কিছুটা ঠান্ড হয়ে এলে পান করুন। এটি সপ্তাহে তিন বার পান করুন। লবঙ্গ অ্যান্টি সেপটিক, অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি প্যারাসাইটিক। এটি পেটে কৃমির ডিম এবং কৃমি ধবংস করে দেয়।