বেড়েছে চাল ছোলা চিনির দাম » Leading News Portal : BartaBangla.com

বার্তাবাংলা ডেস্ক »

সপ্তাহের ব্যবধানে চাল, ডাল, ছোলা ও চিনির দাম বেড়েছে কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা। তবে কমেছে ডিম ও মুরগির দাম। এছাড়া অন্যান্য পণ্যের দাম প্রায় অপরিবর্তিত রয়েছে।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর মেরাদিয়া, রামপুরা, শাহজাহানপুর, মালিবাগ, কারওয়ান বাজার, শান্তিনগর, ফকিরাপুলসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

সরেজমিন দেখা যায়, গত সপ্তাহে ছোলা প্রতি কেজি ৭৪-৮৪ টাকা বিক্রি হতো। এ সপ্তাহে তা ১০-২০ টাকা বাড়িয়ে বিক্রি হচ্ছে ৮৫-১১০ টাকায়। চিনি গত সপ্তাহে ৬২-৬৫ টাকায় বিক্রি হলেও চলতি সপ্তাহে তা ৬-১০ টাকা বাড়িয়ে ৭০-৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মাছের বাজারেও চড়া ভাব লক্ষ্য করা গেছে। গত সপ্তাহে প্রতি কেজি রুই বিক্রি হয়েছে ২০০-৩০০ টাকায়। এ সপ্তাহে তা বিক্রি হচ্ছে ২৫০-৩৫০ টাকা। প্রতি কেজি ইলিশ ৭০০- ১২০০ টাকা।

গত সপ্তাহে গরুর মাংস প্রতি কেজি ৪৮০-৫০০ টাকা। এ সপ্তাহে ১০ টাকা বাড়িয়ে বিক্রি হচ্ছে ৪৯০-৫১০ টাকা। খাসি প্রতি কেজি ৬৫০-৭৫০ টাকা। ব্রয়লার মুরগি কেজিতে কমেছে ৫-১০ টাকা।গত সপ্তাহে প্রতি কেজি ১৫০-১৫৫ টাকায় বিক্রি হলেও এ সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে ১৪৫-১৫০ টাকা। দেশি মুরগি প্রতি কেজি ৩৭০-৪০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ডিম (ফার্ম) প্রতি হালি ২৬-২৮। যা গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছে ৩০-৩২ টাকায়। সাধারণ মানের প্রতি কেজি খেজুর বিক্রি হচ্ছে ১২০-২৫০ টাকা।

এদিকে নাজির/মিনিকেট (সাধারণ মানের) প্রতি কেজি চাল বিক্রি হচ্ছে ৫০-৫২ টাকা, উত্তম মানেরটা বিক্রি হচ্ছে ৫২-৫৬ টাকা আর মাঝারি মানের প্রতি কেজি ৪৬-৫০ টাকা। পাইজাম/লতা (সাধারণ মানের) প্রতি কেজি ৪৬-৪৮ টাকা, উত্তম মানের প্রতি কেজি ৪৮-৫০। মোটা/ স্বর্ণা/ চায়না ইরি প্রতি কেজি ৪২-৪৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে, যা গতসপ্তাহেও একই দরে বিক্রি হচ্ছে।

প্রতি কেজি আটা বিক্রি হচ্ছে ২৪-৩২ টাকা, সাদা খোলা আটা প্রতি কেজি ২৪-২৬ টাকা, প্যাকেট আটা ৩০-৩২ টাকা। ময়দা প্রতি কেজি ৩৪-৪২ টাকা, ময়দা (খোলা) প্রতি কেজি ৩৪-৩৬ টাকা, ময়দা (প্যাকেট) প্রতি কেজি ৪০-৪২ টাকা।গত সপ্তাহেও তা একই দামে বিক্রি হয়েছে।

সয়াবিন তেল (লুজ) প্রতি লিটার ৮২-৮৪ টাকা, সয়াবিন তেল (বোতল) ৫ লিটার ৪৯০-৫২০ টাকা, সয়াবিন তেল (বোতল) ১ লিটার ১০০-১০৬ টাকা, পাম অয়েল (লুজ) প্রতি লিটার ৭০-৭২ টাকা, পাম অয়েল (সুপার) প্রতি লিটার ৭৪-৭৫ টাকা।গত সপ্তাহেও তা একই দামে বিক্রি হয়েছে।

অপরদিকে, মশুর ডাল প্রতি কেজি ৭৫-১৩৫ টাকা। ডাল (তুরস্ক/কানাডা-বড় দানা) গত সপ্তাহে প্রতি কেজি ৭৫-৮০ টাকা বিক্রি হয়েছে। এ সপ্তাহে ৫ টাকা বাড়িয়ে বিক্রি হচ্ছে ৭৫-৮৫ টাকা। মাঝারি ধরনের ডাল (তুরস্ক/কানাডা) প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকা। ডাল (দেশি) প্রতি কেজি ১১০-১২০ টাকা। ডাল (নেপালি) প্রতি কেজি ১৩০-১৩৫ টাকা। মুগ ডাল (মানভেদে) প্রতি কেজি ১১০-১৩৫ বিক্রি হয়েছে গত সপ্তাহে। চলতি সপ্তাহে তা কমে বিক্রি হচ্ছে ৯০-১২০ টাকা। অ্যাংকর ডাল প্রতি কেজি ৪৫-৬০টাকা। আলু প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৫-২০ টাকা।

প্রতি কেজি পেঁয়াজ ২০-৩২, আমদানি করা পেঁয়াজ ২০-২৫ টাকা, দেশি পেঁয়াজ ২৫-৩২ টাকা, রসুন ১০০-২৪০, শুকনা মরিচ ১৫০-২০০, হলুদ ১৬০-২০০ টাকা, আদা (আমদানি) মানভেদে প্রতি কেজি ৭০-১১০ টাকা, জিরা প্রতি কেজি ৩৮০-৪৫০ টাকা, দারুচিনি ৩২০-৩৬০ টাকা, এলাচ প্রতি কেজি ১২০০-১৬০০ টাকা। ধনেপাতা ১২০-১৫০ ও তেজপাতা প্রতি কেজি ১৩০ টাকা।

তবে শাক-সবজিসহ অন্যান্য জিনিসপত্রের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। ঢেঁড়শ, শশা, করলা, লতি, ঝিঙা, পেঁপে, আলু, পটল প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকায়।

রামপুরা বাজারের ব্যবসায়ী শফিউল আলম জানান, ডিম ও ব্রয়লার মুরগির দাম কিছুটা কমেছে। এছাড়া চাল, ডাল, চিনি ও ছোলার দাম বেড়েছে। বাকি পণ্য স্থিতিশীল রয়েছে।

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

Welcome to BartaBangla Desk! BartaBangla (BartaBangla.com) is one of the most popular Bengali news-portal, which is jointly operating from Europe & Bangladesh. We have certain number of quality journalists in our team. We started our journey in 2011 and already got huge readers with us around the globe. Thanks again being with us!

মন্তব্য করুন »