শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২ উইকেটে ৬৪

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টে টস হেরে ফিল্ডিং করছে বাংলাদেশ দল। দলীয় ১৫ রানে উপুল থারাঙ্গার (৪) উইকেট হারিয়ে বেশ সাবধানী ব্যাটিং করছে লঙ্কানরা। ‘নতুন জীবন’ পাওয়া কুশল মেন্ডিসের সঙ্গে জুটি গড়ার চেষ্টা করছেন ওপেনার দিমুথ করুনারাত্নে।

এ রিপোর্ট লেখা অবধি শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২৭ ওভার শেষে ২ উইকেটে ৬৪। করুনারাত্নে ২০ ও মেন্ডিস ৮ রানে ব্যাট করছেন।

ষষ্ঠ ওভারের চতুর্থ বলে উপুল থারাঙ্গাকে (৪) বোল্ড করে ব্রেকথ্রু এনে দেন পেসার শুভাশিস রায়। পরের বলেই লিটন দাসের গ্লাভসে ধরা পড়েন কুশল মেন্ডিস। কিন্তু, দুর্ভাগ্য! রিভিউতে পায়ের ‘নো’ বল ধরা পড়ায় আউটের সিদ্ধান্ত ফিরিয়ে নেন আম্পায়ার।

মঙ্গলবার (৭ মার্চ) গল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন লঙ্কান দলপতি রঙ্গনা হেরাথ। ইনজুরির কারণে নিয়মিত অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস ছিটকে যাওয়ায় দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন তিনি।

চার বছর আগে গলে প্রথমবারের মতো শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্টে ড্রয়ের কীর্তি গড়েছিল টিম বাংলাদেশ। একই গ্রাউন্ডে টাইগারদের সেই সুখস্মৃতি পুনরাবৃত্তির চ্যালেঞ্জ! বাংলাদেশের এটি ৯৯তম টেস্ট। কলম্বোর পি সারা ওভালে শততম টেস্টের (১৫ মার্চ) মাইলফলক স্পর্শ করবে তারা।

এ সিরিজে শুধুমাত্র বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলছেন অধিনায়ক মুশফিক। নিজের ইচ্ছাতেই উইকেটকিপিং করছেন না ‘মি. ডিপেন্ডেবল’। উইকেটরক্ষকের দায়িত্ব লিটন দাসের কাঁধে। এদিকে, ২০১৫ সালের জুলাই-আগস্টের পর প্রথম টেস্ট খেলছেন ‘কাটার মাস্টার’ মোস্তাফিজুর রহমান।

তিন পেসার নিয়ে একাদশ গড়া হয়েছে। স্পিনার তাইজুল ইসলামকে রাখা হয়নি। তার পরিবর্তে সুযোগ পেয়েছেন শুভাশিস রায়। অন্যদিকে, লিটন থাকায় জায়গা হয়নি সাব্বির রহমানের।

নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে গলে একটি টেস্টই খেলেছে টিম বাংলাদেশ। কখনো ওয়ানডে বা টি-২০ ম্যাচ খেলার সুযোগ হয়নি। ২০১৩ সালের মার্চে অনুষ্ঠিত আট সেঞ্চুরির সেই স্মরণীয় ম্যাচটি দাপটের সঙ্গেই ড্র করে মাঠ ছেড়েছিল টাইগাররা।

প্রথম ইনিংসে স্বাগতিকদের ৫৭০ রানের জবাবে স্কোরবোর্ডে ৬৩৮ রান তোলে সফরকারীরা। টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি উদযাপন করেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। ১৯০ রানের অসাধারণ ইনিংস উপহার দেন মোহাম্মদ আশরাফুল। মুশফিক-আশরাফুলের পর সেঞ্চুরি হাঁকান নাসির হোসেন।

তাইতো বলাই যায়, গলে অপরাজেয় বাংলাদেশ। সময়ের সঙ্গে যারা এখন আরো বেশি পরিণত। ঘরের মাটিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট জয়, ভারতে গিয়ে একমাত্র টেস্টে লড়াকু পারফরম্যান্স প্রদর্শন সব মিলিয়ে শ্রীলঙ্কা সফরেও গল টেস্ট দিয়ে দুর্দান্ত শুরুর প্রত্যাশা বাংলাদেশের অগণিত ক্রিকেটপ্রেমীদের।

পরিসংখ্যানে বাংলাদেশের চেয়ে যোজন যোজন এগিয়ে শ্রীলঙ্কা। সাদা পোশাকে এখন পর্যন্ত ১৬ বারের দেখায় ১৪ ম্যাচে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে লঙ্কানরা। কিন্তু, সবশেষ দু’টি সিরিজ ছিল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। চার ম্যাচের মধ্যে দু’টি ড্রতে নিষ্পত্তি হয়। ২০১৪ সালে চিটাগংয়ে অনুষ্ঠিত দু’দলের সবশেষ ম্যাচটিতে জয় পায়নি কেউই।

ঘরের মাটিতে সবশেষ পাঁচ ম্যাচেই জয় তুলে নেয় শ্রীলঙ্কা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের পর হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় ডোবে অস্ট্রেলিয়া (তিন ম্যাচ)। সে যাই হোক, সব মিলিয়ে নিজেদের শেষ পাঁচ টেস্টের মধ্যে তিনটিতেই হেরে যায় লঙ্কানরা। জয় দু’টিতে। বাংলাদেশ চারটি হারের বিপরীতে এক ম্যাচে জয় পায়।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মমিনুল হক, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান, লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), মেহেদী হাসান মিরাজ, তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান, শুভাশিস রায়।

শ্রীলঙ্কা একাদশ: দিমুথ করুনারাত্নে, উপুল থারাঙ্গা, কুশল মেন্ডিস, দিনেশ চান্দিমাল, নিরোশান ডিকওয়েলা (উইকেটরক্ষক), অসিলা গুনারাত্নে, দিলরুয়ান পেরেরা, রঙ্গনা হেরাথ (অধিনায়ক), সুরাঙ্গা লাকমল, লাহিরু কুমারা, লক্ষণ সান্দাকান।