সাংবাদিকেরা পৃথিবীর ‘অসৎ মানুষদের’ শ্রেণিভুক্ত : ট্রাম্প

শপথ নেওয়ার পর প্রথম কর্মদিবসে সংবাদমাধ্যমকে একহাত নিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, সাংবাদিকেরা পৃথিবীর সবচেয়ে ‘অসৎ মানুষদের’ শ্রেণিভুক্ত। শুধু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পই নন, হোয়াইট হাউসের প্রথম প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের ঢালাওভাবে অভিযুক্ত করা হয়েছে। সাংবাদমাধ্যমকে অভিযোগ করেই ট্রাম্প প্রশাসনের যাত্রা শুরু হলো।

শপথ নেওয়ার পরদিন গতকাল শনিবার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার (সিআইএ) কর্মকর্তাদের সঙ্গে সভা করেন। গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সভার দিকে অতিরিক্ত নজর ছিল সব মহলের। নির্বাচনী প্রচারণায়, এমনকি শপথ নেওয়ার আগেও গোয়েন্দাদের নিয়ে সমালোচনামুখর ছিলেন ট্রাম্প। সভায় উপস্থিত হয়ে শীর্ষ গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে কী বলবেন, কেমন করে এ সংস্থার সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক বৃদ্ধি করবেন—এ নিয়ে বক্তব্য আশা করছিলেন সবাই।

গোয়েন্দাদের কতটা ভালোবাসেন—এ কথা বলেই ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর বক্তব্য সাংবাদিকদের দিকে ঘুরিয়ে দেন। হাত দিয়ে দেখিয়ে বলেন, সংবাদপত্রের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক বৈরিতার। সাংবাদিকেরা সিআইএ ও ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টির জন্য কাজ করছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। সাংবাদিকদের পৃথিবীর সবচেয়ে অসৎ মানুষের গোত্রভুক্ত উল্লেখ করেন ট্রাম্প। গোয়েন্দা সদর দপ্তরে দেওয়া ১৫ মিনিটের বক্তব্যের নয় মিনিট তিনি কথা বলেন সংবাদমাধ্যম ও সাংবাদিকদের নিয়ে। তিনি অভিযোগ করেন, গত শুক্রবার তাঁর শপথ নেওয়ার দিন ওয়াশিংটনে যোগ দেওয়া লোকসংখ্যা নিয়ে ভুল তথ্য দিয়েছে সব সংবাদমাধ্যম। প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার শপথ নেওয়ার দিনের চেয়ে লোকসমাবেশ কম হয়েছে বলে প্রায় সব মার্কিন সংবাদমাধ্যম প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, সাংবাদিকেরা ছবি উঠিয়েছেন কায়দা করে। এমনভাবে ছবি উঠিয়েছেন, যাতে লোকসংখ্যা কম দেখা যায়। নিজের অভিষেকের দিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি লোকের সমাবেশ হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। অসততার জন্য সাংবাদিকদের মূল্য দিতে হবে বলেও তিনি বলেন।

সাংবাদিকদের নিয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিষোদ্‌গারের কিছুক্ষণ পরই হোয়াইট হাইসের প্রেস ব্রিফিং রুমে উপস্থিত হন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সদ্য নিযুক্ত প্রেস সেক্রেটারি সেইন স্পাইসার। সেইন স্পাইসার তাঁর প্রথম প্রেস ব্রিফিংয়ে লিখিত বক্তব্য নিয়ে উপস্থিত হন। হোয়াইট হাউস প্রেস কোরের কাছে উপস্থাপিত বক্তব্যে তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিযোগের পুনরায় উল্লেখ করেন। তিনি নিজে নিজেই একটা হিসাব দিয়ে অভিষেকের দিন লোকসমাবেশের একটি তথ্য হাজির করেন। পাশাপাশি শুক্রবার হোয়াইট হাউস থেকে এক সাংবাদিকের মার্টিন লুথার কিংয়ের মূর্তি সরিয়ে দেওয়াসংক্রান্ত ভুল সংবাদের উদাহরণ তুলে ধরেন। একজন সাংবাদিকের ভুল করে করা সংবাদটি দ্রুত সংশোধন করা হলেও তা তিনি উল্লেখ করেনি।

প্রভাবশালী দৈনিক নিউইয়র্ক টাইমস তাদের অনলাইন সংস্করণে দেওয়া তাৎক্ষণিক প্রতিবেদনে বলেছে, কোনো সংবাদমাধ্যমের ছবিই প্রেসিডেন্ট বা তাঁর প্রেসসচিবের বক্তব্য সমর্থন করে না। সব ধারণকৃত ছবি পর্যালোচনা করেই বলা চলে প্রেসিডেন্ট ওবামার অভিষেকের চেয়ে লোকসমাবেশ এবারে কম হয়েছিল। নিউইয়র্ক টাইমস বলেছে, প্রেস সচিব যেসব তথ্য দিয়ে সমাবেশের উপস্থিতি বেশি বলার চেষ্টা করেছেন, তাও যথার্থ নয়। বাস, ট্রেনের যাত্রী পরিসংখ্যান দিয়ে সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের দাবি যথার্থ নয়।