জেনে নিন খালি পেটে পানি পান করার উপকারিতা

পানি জীবনের জন্য অত্যাবশ্যকীয় একটি উপাদান। স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য এবং শরীরের প্রতিটি অঙ্গের কাজ ঠিক ভাবে সম্পন্ন হওয়ার জন্য পানি প্রয়োজন। খালি পেটে পানি পান করার বিস্ময়কর উপকারিতার বিষয়েই জানবো এই ফিচারে।

১. দেহকে বিষমুক্ত হতে সাহায্য করে

পানি পান করলে শরীরের বর্জ্য নিষ্কাশন সহজ ভাবে সম্পন্ন হয়। রাতের বেলায় শরীর নিজেই নিজের মেরামতের কাজ সম্পন্ন করে এবং বিষাক্ত পদার্থগুলোকে একত্র করে। সকালে যখন খালি পেটে পানি পান করা হয় তখন এই বিষাক্ত উপাদানগুলো শরীর থেকে বের করে দেয়। এছাড়াও পর্যাপ্ত পানি পান করলে পেশীর কোষের উৎপাদন বৃদ্ধি পায় এবং নতুন রক্ত কোষ উৎপন্ন হয়।

২. বিপাকের উন্নতি ঘটায়

খালি পেটে পানি পান করলে বিপাকের হার ২৪ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়। বিপাকের হার বৃদ্ধি পাওয়ার অর্থ পরিপাক প্রক্রিয়ার ও উন্নতি হওয়া। আপনার পরিপাক যদি দ্রুত হয় তাহলে ডায়েট রুটিন অনুসরণ করাও সহজ হবে। ঘুম থেকে জেগেই পানি পান করলে কোলন পরিষ্কার হয় এবং শরীরের জন্য পুষ্টি উপাদান শোষণ করা সহজ হয়।

৩. ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে

সকালে খালি পেটে পানি পান করলে বিষাক্ত পদার্থ শরীর থেকে বের হয়ে যায় এবং পরিপাক তন্ত্রের ও উন্নতি ঘটে। পানি পান করলে পেট ভরার অনুভূতি পায় এবং ক্ষুধা কমে। এভাবেই বেশি খাওয়ার প্রবণতা কমে এবং ওজন বৃদ্ধি প্রতিহত হয়।

৪. বদহজম উপশম করে

পাকস্থলীর এসিডের পরিমাণ বৃদ্ধি পেলে বদহজম হয়। অন্যনালীতে এসিড রিফ্লাক্স হলে বুক জ্বালাপোড়ার সমস্যায় ভোগে। খালি পেটে পানি পান করলে এসিড নীচের দিকে চলে যায়।

৫. ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে

পানি শূন্যতার ফলে ত্বকে অকালেই বলিরেখার ছাপ পড়ে এবং ত্বকের ছিদ্রগুলো গভীর হয়। এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, খালি পেটে ৫০০ মিলিলিটার পানি পান করলে ত্বকে রক্ত প্রবাহ বৃদ্ধি পায় এবং ত্বক উজ্জ্বল হয়।

৬. চুলকে চকচকে, মসৃণ এবং স্বাস্থ্যবান হতে সাহায্য করে

ডিহাইড্রেশন চুলের উপর মারাত্মক প্রভাব ফেলে। পানি ভেতর থেকে চুলকে পুষ্টি সরবরাহ করে। অপর্যাপ্ত পানি পান করলে চুল পাতলা হয়ে যায় এবং চুলের আগা ফেটে যায়। প্রতিদিন খালি পেটে পানি পান করলে চুলের মান উন্নত হয়।

৭. কিডনির পাথর হওয়া প্রতিরোধ করে

ঘুম থেকে জেগেই পানি পান করলে কিডনিতে পাথর হওয়া এবং মূত্রথলির ইনফেকশন হওয়া প্রতিরোধ করে। খালি পেটে পানি পান করলে পাকস্থলীর এসিড পাতলা হতে সাহায্য করে। এই এসিড কিডনির পাথর সৃষ্টির জন্য দায়ী। পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করলে টক্সিনের দ্বারা সৃষ্ট বিভিন্ন ধরণের ব্লাডার ইনফেকশন থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।

৮. ইমিউন সিস্টেমকে শক্তিশালী করে

খালি পেটে পানি পান করলে লিম্ফেটিক সিস্টেমের ভারসাম্য রক্ষা করতে সাহায্য করে। যা ইমিউনিটির মাত্রা বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে। শক্তিশালী ইমিউন সিস্টেম বিভিন্ন ধরণের রোগ থেকে রক্ষা করে এবং প্রায়ই অসুস্থ হওয়া প্রতিরোধ করে।