জেনে নিন কিভাবে চুলের স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে হেয়ার স্টাইল

আপনি হয়তো শুনে অবাক হবেন যে, হেয়ার স্টাইল চুলের স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে। আমরা সবাই জানি যে চুলের গড়ন বিভিন্ন রকমের হয় যেমন- সোজা, ঢেউ খেলানো বা কোঁকড়া ইত্যাদি। কিন্তু চুলে কালার করলে, স্ট্রেইট করার জন্য আয়রন করলে, ড্রায়ার ব্যবহার করলে এবং নিম্ন মানের শ্যাম্পু ব্যবহার করলেও চুল দুর্বল হয়ে যেতে পারে। চলুন তাহলে জেনে নিই বিস্তারিত।

চুলের ক্ষতি হতে পারে এটা না বুঝেই নারীরা তাদের চুলকে সুন্দর করার জন্য অনেক কিছুই ব্যবহার করে থাকেন। হেয়ার স্টাইল, মেকআপ এবং পোশাক একজন নারীর ব্যক্তিত্বের প্রতিফলন ঘটায়। আপনার রুচি ও পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে আপনি হয়তো জীবনে বহুবার আপনার লুক চেঞ্জ করেছেন। একারণেই কিছু মানুষ আপনাকে দেখে বলেন যে, আপনার চেহারায় আমূল পরিবর্তন হয়েছে। এই ধরণের পরিবর্তন আনার জন্যই নারীরা প্রথমেই যান হেয়ার সেলুনে হেয়ার কাটের জন্য বা ডাই করার জন্য। আপনি প্রতিদিন চুলে যা ব্যবহার করছেন তার কারণেই আপনার চুল দুর্বল, নিস্তেজ ও ভঙ্গুর হয়ে যায়।

১. প্রতিদিন অনেক বেশী বার চুল আঁচড়ানো উচিৎ নয়। এতে করে চুলের আগা ভেঙ্গে যায়। দিনে ১/২ বার আঁচড়ানোই যথেষ্ট। চুল শুষ্ক অবস্থায় আঁচড়ানো ভালো।

২. চুল ধোয়ার পরে বাতাসে শুকিয়ে নেয়া উচিৎ, এতে চুল ভেঙ্গে যাওয়া প্রতিরোধ করা যায়। ভেজা চুল দুর্বল থাকে বলে চুল ভেজা থাকা অবস্থায় কোন স্টাইল করা ঠিক নয়। ঢেউ খেলানো চুলের ক্ষেত্রে এর ঠিক বিপরীতটাই উপকারী হয়।

৩. ড্রায়ার দিয়ে চুল না শুকানোই ভালো বা পুরোপুরি না শুকিয়ে কিছুটা ভেজা রাখা উচিৎ যাতে নিজে নিজেই শুঁকাতে পারে।

৪. চুল আয়রন করতে চাইলে মধ্যম বা কম তাপে করা উচিৎ এবং প্রতিদিন করা উচিৎ নয়। যদি সোজা চুলকে কোঁকড়ানো করতে চান তাহলে কারলিং আয়রন ২ সেকেন্ডের বেশী রাখবেন না। মনে রাখবেন তাপের ফলে চুলের তন্তু ক্ষতিগ্রস্থ হয়। চুলে স্প্রে ব্যবহার করলে বা দীর্ঘক্ষণ জেল লাগিয়ে রাখলে চুল ভঙ্গুর ও দুর্বল হয়ে যায়।

৫. সারাদিন চুল বেণি করে বা খোঁপা করে রাখা অথবা ঝুঁটি বেঁধে রাখা এড়িয়ে চলা উচিৎ। এতে চুল শক্ত হয়ে পড়ে এবং ক্রমশ নিস্তেজ ও ভঙ্গুর হয়ে যায়। এর ফলে ভবিষ্যতে চুল কমে যাওয়া শুরু হতে পারে।

৬. মাথার তালুর কোন সমস্যার বিষয়ে একজন ডারমাটোলজিস্টের সাহায্য নিন হেয়ার স্টাইলিস্টের নয়। চুলে কোন স্টাইল করার ক্ষেত্রে কী ধরণের পণ্য ব্যবহার করা হচ্ছে সে বিষয়ে জেনে নিন।

৭. হেয়ার স্টাইল নিয়ে অনেক মিথ প্রচলিত আছে। কেউ কেউ বলেন যে, যে নারীরা তাদের চুল খুলে রাখে তারা আবেগ প্রবণ হয় এবং রোমান্টিক হয়। এই নারীরা ক্লাসিক, বিচক্ষণ, পরিপক্ক এবং শান্ত হয়। যাদের চুল কাঁধ বরাবর বা এর চেয়ে লম্বা হয় তারা বুদ্ধিমান এবং বন্ধুত্ব পরায়ণ হয়। যাদের চুলের কাট ছোট হয় তারা সাধারণত ঝুঁকিপূর্ণ ও খেলোয়াড়সুলভ গড়নের হয়। তারা মিশুক এবং আত্মবিশ্বাসী ও হয়।

৮. ঢেউ খেলানো চুলের অধিকারীরা গুরুগম্ভীর এবং অমিশুক হয়। এলোমেলো চুল যাদের বা যারা আঙ্গুল দিয়ে চুল আঁচড়ায় তাদের বলিষ্ঠ ও আনন্দপূর্ণ দৃষ্টিভঙ্গী হয়।

কিন্তু এটি প্রায়ই বলা হয় যে, কোঁকড়া চুল যাদের তারা উচ্চাভিলাষী কিন্তু অসংলগ্ন হয়। সোজা চুল যাদের তারা ভীরু এবং স্পর্শকাতর হয়। ঘন ও লম্বা চুলের অধিকারীরা কর্মশক্তি পূর্ণ হয় এবং তারা সিদ্ধান্ত নিতে পারে।