বার্তাবাংলা ডেস্ক »

RANGPURবার্তাবাংলা ডেস্ক  ::দেশের বিভিন্ন স্থানে শুক্রবারও জামায়াত-শিবিরের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে সংঘর্ষে আরো ১ পুলিশসহ নিহত হয়েছে দু’জন। এ ছাড়া নোয়াখালীতে গতকালের সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি ও বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ জানায়, ভোরে ফজরের নামাজের পরপরই সুন্দরগঞ্জে জামায়াত শিবির কর্মীরা জড়ো হতে থাকে। সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে আইন শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় একজন নিহত ও পাঁচজন গুরুতর আহত হয়। এক পর্যায়ে সংঘর্ষ আশেপাশের এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে। বৃহস্পতিবার দেলাওয়ার হোসেন সাঈদীর ফাঁসির রায় হওয়ার পর জামায়াতের তান্ডব শুরু হয়ে যায়। এদিনও পুলিশের সঙ্গে জামায়াত-শিবিরের সংঘর্ষে ৭ জন নিহত হয়।
বৃহস্পতিবার সুন্দরগঞ্জে জামায়াত শিবিরের হামলায় ৪ পুলিশ সদস্য নিহত হয়, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আইন শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী গুলি চালালে ৩ জন নিহত এবং শতাধিক আহত হয়। তারা বিভিন্ন স্থানে ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগ করে।
আইন শৃঙ্খলা বাহিনী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এখানে বিজিবি মোতায়েনেরও কথা রয়েছে।
এদিকে, বৃহস্পতিবার নোয়াখালীতে জামায়াত-শিবিরের তাণ্ডবে আহতদের মধ্য আরো একজন মারা গেছে। এছাড়া সোনাইমুড়িতে সকাল থেকে আবারো জামায়াত শিবিরের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। এতে ১৫ জন আহত হবার খবর পাওয়া গেছে।
অন্যদিকে, বেগমগঞ্জের রাজগঞ্জে বৃহস্পতিবার রাতে জামায়াত শিবির কর্মীরা অসংখ্য বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় বিজিবি মোতায়েন করেছে প্রশাসন।
এদিকে, জামায়াত-শিবির কর্মীরা বৃহস্পতিবার রাতে জয়পুরহাটের বিভিন্ন এলাকায় হামলা চালিয়ে ৪টি বাড়ি এবং ২০টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর, লুটপাট করে আগুন লাগিয়ে দেয়। এছাড়া, বৃহস্পতিবার দেশের বিভিন্ন এলাকায় জামায়াত শিবিরের ব্যাপক তাণ্ডবের পর, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সিরাজগঞ্জ, নাটোর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, সাতক্ষীরায় অনির্দিস্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন।
রংপুরের মিঠাপুকুর ও কুষ্টিয়ায় রাত দশটা পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »