চট্টগ্রামে ব্যাংক কর্মকর্তা গ্রেপ্তার

ক্ষমতার অপব্যবহার করে কোনো ধরনের আবেদন ও অনুমোদন ছাড়া ব্যবসায়ীকে টাকা পাইয়ে দেওয়া ও আত্মসাতের মামলায় বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের এক কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তাঁর নাম মো. আলমগীর হোসেন।

আজ মঙ্গলবার বেলা দেড়টার দিকে নগরের আগ্রাবাদ এলাকা থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাঁকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দিয়েছেন দুদক চট্টগ্রামের বিভাগীয় পরিচালক মো. আবু সাঈদ।

আলমগীর হোসেন বর্তমানে বাংলাদেশ ব্যাংক কমার্স লিমিটেডের প্রধান কার্যালয়ে ফার্স্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে কর্মরত। আজ সকালেই ক্ষমতার অপব্যবহার ও টাকা আত্মসাতের অভিযোগে আলমগীরসহ দুজনের বিরুদ্ধে মামলাটি করেছিলেন দুদক চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক এম এইচ রহমতউল্লাহ। অপর আসামির নাম ফিরোজ মিয়া।

দুদক চট্টগ্রাম সূত্র জানায়, ২০১৩ সালে মো. আলমগীর হোসেন ব্যাংকটির খাতুনগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক পদে ছিলেন। ওই বছরের আগস্টে তিনি মেসার্স রুমি সিন্ডিকেট নামের একটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানকে কোনো ধরনের আবেদন, অনুমোদন ছাড়াই ব্যাংক থেকে ২৯ লাখ ৬৬ হাজার টাকার বেশি ঋণ দেন। ওই ঋণের বিপরীতে কোনো ধরনের জামানত বা বন্ধকিও নেওয়া হয়নি। প্রতিষ্ঠানের মালিক ফিরোজ মিয়ার সঙ্গে যোগসাজশে অবৈধভাবে তাঁকে এ টাকা দেওয়া হয়। ফিরোজ মিয়া ওই টাকার পুরোটা ব্যাংকে পরিশোধ করেননি। ৪ লাখ ৮১ হাজার টাকার বেশি আত্মসাৎ করেছেন।

মামলার বাদী দুদক চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক এম এইচ রহমতউল্লাহ বলেন, ব্যাংকটির ৫২ শতাংশ মালিকানা সরকারের। ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ তদন্তেও আলমগীর হোসেনের এ অনিয়মের কথা উল্লেখ আছে।

দুদকের আইনজীবী সানোয়ার হোসেন জানান, বিকেলে আসামি আলমগীর হোসেনকে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম নাজমুল হোসেন চৌধুরীর আদালতে হাজির করা হয়। আদালত আসামিকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।