বারানসিতে পদদলনে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৪

ভারতের উত্তর প্রদেশের বারানসিতে পদদলিত হয়ে নিহত ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে ২৪–এ পৌঁছেছে। সেখানে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে আসা কয়েক হাজার মানুষ একসঙ্গে একটি সেতুর ওপর দিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করায় ও সেতু ভেঙে যাওয়ার গুজব ছড়িয়ে পড়ায় হুড়োহুড়িতে এ ঘটনা ঘটে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এনডিটিভির খবরে জানা যায়, রাজ্য পুলিশের প্রধান জাভেদ আহমেদ বলেন, গঙ্গা নদীর ওপর রাজঘাট সেতুসংলগ্ন একটি সরু রাস্তায় বিপুলসংখ্যক লোকের সমাগম ঘটে। ক্রমবর্ধমান ভিড়ের মধ্যে একজন পুরুষ শ্বাসরোধে মারা গেলে জনতার মধ্যে মানসিক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এর মধ্যে গুজব ছড়িয়ে পড়ে যে রাজঘাট সেতু ভেঙে পড়েছে। এই গুজবের কারণে আরও বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

জাভেদ বলেন, পাঁচ হাজার মানুষ ওই অনুষ্ঠানে জড়ো হবে উল্লেখ করে অনুমতি চাওয়া হয়। কিন্তু সেখানে প্রায় ৫০ হাজার মানুষের সমাগম ঘটে। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে বেশির ভাগ নারী। সমাবেশের ব্যবস্থাপনার বিষয়টি পুলিশ তদন্ত করছে। ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি পার্লামেন্টে এই বারানসি এলাকার প্রতিনিধিত্বকারী। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম টুইটারে দেওয়া এক বার্তায় তিনি বলেছেন, তিনি এ ঘটনায় মর্মাহত। তিনি কর্মকর্তাদের এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ও আহত ব্যক্তিদের সম্ভাব্য সব ধরনের সহায়তা নিশ্চিত করতে বলেছেন।

ভারতে ধর্মীয় উৎসবে পদদলিত হওয়ার ঘটনা বিরল নয়। গত জুলাইয়ে দেশটির দক্ষিণাঞ্চলের পবিত্র নদীর তীরে পদদলিত হয়ে ২৭ তীর্থযাত্রীর মৃত্যু হয়। ২০১৩ সালের অক্টোবরে মধ্যপ্রদেশ রাজ্যের একটি মন্দিরের কাছে পদদলিত হয়ে ১১৫ জনের মৃত্যু হয়। সাত বছর আগে ওই স্থানে পদদলিত হওয়ার আরেকটি ভয়াবহ ঘটনা ঘটে।