ইন্ডিয়া ইজ দ্য রেপ ক্যাপিটাল অফ দ্য ওয়ার্ল্ড : রূপম

‘বয়কট মাইল্‌স’ ক্যাম্পেনের পিছনে ‘ফসিল্‌স’, মন্তব্য ‘মাইল্‌স’এর দুই সদস্য শাফিন আহমেদ এবং মানাম আহমেদের! শুধু তাই নয়, ফেসবুক পেজে ভিডিও আপলোড করে রূপম ইসলামের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলতেও ছাড়লেন না তাঁরা। রূপম তাঁর ফেসবুক পেজে যার জবাবও দিলেন।
শাফিন ওই পোস্টে বলেন, ‘বাংলাদেশি নাগরিক হিসেবে দেশের কোনও ক্ষতি হোক চাই না। যা আমরা বলতে চাই, নাগরিক হিসেবে আমাদের তা বলার অধিকার রয়েছে। সেটাকে টেনে নিয়ে একটা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তুলে ধরার কোনও প্রয়োজন আছে বা ছিল বলে মনে করি না’। তাঁর দাবি, তিনি এবং তাঁর ভাই হামিনের পোস্টগুলো ‘দেশপ্রেম সংক্রান্ত’। সেটা
ভারত বিদ্বেষ নয়। ‘মাইল্‌স’ জানিয়েছে, তারা নাকি ‘বাধ্য’ হয়েছে কথাগুলো বলতে!
ভারতীয় শিল্পীরা প্রতি মাসে বাংলাদেশে যান। এই বয়কট আন্দোলনের ফলে সেই জায়গাটা নষ্ট হতে পারে। পোস্টে এমনই আশঙ্কা শাফিনের। ‘এটা খুবই দুঃখজনক, ‘ফসিল্‌স’এর মতো একটা ব্যান্ড এই জিনিসটা বুঝতে পারল না। জানি না, রূপমের শিক্ষাগত অবস্থানটা কী? তার চিন্তাভাবনা কেমন? দেশপ্রেমকে যদি কেউ অন্যভাবে ম্যানিপুলেট করে, সেটা অজ্ঞতার পরিচয়। এক বাঙালি হয়ে আরেক বাঙালির পিছনে দৌড়ে লাভ নেই তো’, বলেন মানাম। শাফিন এ-ও বলেছেন, ‘এই ঘটনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হলেন শ্রোতারা। আমরা সানন্দে এই অনুষ্ঠানে পারফর্ম করতাম। কিন্তু আপনাদের মানসিকতা প্রমাণ করল, ইউ আর নট ওপেন। রূপম, অন্য কোনও ব্যান্ডকে বন্ধ করে আপনি বড় হতে পারবেন না। ‘ফসিল্‌স’এর উদ্দেশে বলি, যে কোনও সময় ঢাকায় শো করার আমন্ত্রণ রইল’।
জবাব দিতে ফেসবুকে ‘আমার শিক্ষাগত যোগ্যতা!’ শীর্ষক একটি ভিডিও আপলোড করে রূপম জানান, ‘ইন্ডিয়া ইজ দ্য রেপ ক্যাপিটাল অফ দ্য ওয়ার্ল্ড, চেকপোস্টে সতর্কতা বাড়ানো দরকার, ভারতে সোয়াইন ফ্লু ছড়িয়ে পড়ছে, কিংবা ইন্ডিয়া ইজ আ ফা#ড আপ কান্ট্রি’ এই কথাগুলোর মধ্যে যে কটাক্ষ আছে, সেটা বোঝার জন্য যতটুকু শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা দরকার সেটা আমার আছে। এই মন্তব্য দেশপ্রেম হতে পারে না। আপনার দেশের সঙ্গে হওয়া কোন অনাচারের সন্ধান আপনি দিচ্ছেন? সব দেশেরই ভাল আছে, মন্দও আছে। বেছে বেছে একটি দেশের খারাপগুলো ক্রমাগত যদি তুলে ধরতে থাকেন, সেটাকে আপনার নিজের দেশের প্রতি দেশপ্রেম বলা যায় কি না, সেখানে আমার শিক্ষাগত যোগ্যতার জায়গায় দাঁড়িয়েই কিন্তু সন্দেহ তৈরি হয়েছে। যেটা তৈরি করে দিয়েছেন এই শহরের রকশ্রোতারা’। রূপম এ-ও জানান, গন্ডগোলের আশঙ্কা থাকায় ‘ফসিল্‌স’ কনসার্ট থেকে সরে দাঁড়ায়। বলেন, ‘মাইল্‌স’এর ভিডিওয় বলা হয়েছে, ‘ফসিল্‌স’ এ রকম একটি মুভমেন্ট তৈরি করেছে। আমাদের কী লাভ? আমরা তো সম্মতিপত্র দিয়েও দিয়েছিলাম। সিদ্ধান্ত বদল করতে হল চাপে পড়ে। তথ্যের চাপে, যুক্তির চাপে’। অন্য ব্যান্ডকে বন্ধ করে ‘বড়’ হওয়া যায় না, শাফিনের এই মন্তব্য নিয়ে রূপম বলেন, ‘‘যাঁরা নিজেদের যোগ্যতায়, প্রতিভায় এবং কাজে ধীরে ধীরে বড় হয়েছেন, জন্মেই কথা বলার মতো ব্যুত্পত্তি যাঁদের ছিল না, যাঁদের লড়াই করতে হয়েছে, শিখতে হয়েছে এভাবে বড় হওয়া যে যায় না, সেটা তাঁরাই জানেন। এভাবেই ‘ফসিল্‌স’ কিন্তু ‘ফসিল্‌স’ হয়েছে। রূপম, রূপম হয়েছে।’’ পাশাপাশি ‘মাইল্‌স’এর ভারত-বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্ম নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের শিল্পীরা এসে অনুষ্ঠান করুন। আহ্বান জানাচ্ছি’। জানিয়েছেন, তাঁর বাংলাদেশের প্রতি অনুরাগের কথা। সেখানকার ব্যান্ডের প্রতি ভালবাসার কথাও।