এক সপ্তাহ পর জঙ্গলে জীবিত পাওয়া গেল শিশুটিকে!

এক সপ্তাহ ধরে খোঁজার পর শুক্রবার জাপানের উত্তরাঞ্চলের সেই জঙ্গলেই পাওয়া যায় ইয়ামাতো তানুকাকে। সে জানায়, সেনাঘাঁটির কাছে একটি ঘরে আশ্রয় নিয়েছিল । সেখানে একটি পানির কল ছিল। সেখান থেকে পানি পান করত।

গত শনিবার যে জায়গা থেকে তানুকা হারিয়ে যায় সেখান থেকে পাঁচ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে তাকে খুঁজে পাওয়া যায়।

জানা যায়, ঘটনার দিন বারবার বারণ করার পরও গাড়ি থেকে পথচারীদের দিকে পাথর ছুড়ছিল শিশুটি। এতে প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হন মা-বাবা। শাস্তি দিতে সাত বছরের ছেলেকে পাহাড়ি পথে গাড়ি থেকে নামিয়ে দেন। শিশুটি চলে যায় পাশের জঙ্গলে। সেখানে আবার ভালুকের বসতি। এরপর থেকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না তাকে।

জাপানের উত্তরাঞ্চলের হোক্কাইদো দ্বীপের পুলিশের মুখপাত্র তমোহিতো তামুরা বলেন, খবর দেওয়ার পর শিশুটির মা-বাবা এসে দেখা করেছেন। তানুকাকে ফিরে পেয়ে তাঁরা খুবই খুশি।

সেলফ ডিফেন্স ফোর্সের মুখপাত্র মানাবু তাকেহারা এএফপিকে বলেন, তানুকাকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য হেলিকপ্টারে করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সেলফ ডিফেন্স ফোর্সের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সেনা স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানান, জঙ্গলের ভেতরে সেনাবাহিনীর দুটি ঘর রয়েছে। তার কাছে একটি ঘরে তানুকাকে পাওয়া যায়। দেখামাত্র তানুকা কিছু খেতে চায়। কারণ, সে খুব ক্ষুধার্ত ছিল। নিজের নামও বলে সে।

প্রথমে শিশুটির মা-বাবা পুলিশের কাছে সত্য গোপন করে। বলেন, তারা জঙ্গলের পাশে বুনো সবজি তুলতে নেমেছিলেন। এরপর তানুকা হারিয়ে গেছে। পরে পুলিশকে জানান, শাস্তি দিতে শিশুটিকে গাড়ি থেকে নামিয়ে দিয়েছিলেন।

পুরো এক সপ্তাহ জঙ্গলে তানুকার খোঁজ চলেছে। প্রথমে পুলিশ তাকে খোঁজে। পরে জাপানি সেনারাও যোগ দেয়। ভারী বৃষ্টির জন্য উদ্ধার কাজ ব্যাহত হয়। তবে শেষ পর্যন্ত যখন তানুকাকে পাওয়া গেল, তখন সবাই দারুণ খুশি। ভুল বুঝতে পেরেছেন তানুকার মা-বাবাও। জাপানের গণমাধ্যমে প্রচারিত এক অনুষ্ঠানে এ রকম আচরণ করায় সবার কাছে ক্ষমা চেয়েছেন তানুকার বাবা।

(৭ বছরের ছেলেকে জঙ্গলে ফেলে এলেন বাবা-মা)

আগের খবরটি নিচের লিংকে

https://bartabangla.com/2016/05/30/55824.htm