আমি ডিজিটাল না, এনালগ : রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ

সাংবাদিকদের প্রতি রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের ভালোবাসা বেশ পুরনো। জাতীয় সংসদের স্পিকার থাকাকালে প্রায়ই পার্লামেন্ট ভবনের ষষ্ঠতলায় সাংবাদিক লাউঞ্জে ঢুঁ মারতে দেখা যেতো তাকে। বৃহস্পতিবার (২ জুন) বাজেট পেশের দিনও তিনি এলেন সাংবাদিকদের খোঁজখবর নিতে।

এ সময় নিজের স্বভাবসুলভ ভঙ্গীতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপ জমান রাষ্ট্রপতি। এরই এক ফাঁকে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ডেবিট কার্ড, ক্রেডিট কার্ড আমি বুঝি না। এগুলো এখনো আমার কাছে ‘আন-নোয়িং’ (অপরিচিত) মনে হয়। আমি টাকাও জমা দেই চেকের মাধ্যমে। আমি তো বাবা ডিজিটাল না, এনালগ।

এ সময় নিজের প্যান্টের পকেট থেকে নিজের মোবাইল ফোনটি বের করে রাষ্ট্রপতি বলেন, আমার মোবাইলটাও এনালগ। স্মার্টফোন না। স্মার্ট ফোনে একটা টিপলে আর একটা আসে।

সাংবাদিক লাউঞ্জে রাষ্ট্রপতি আসেন বিকাল ৪টা ২০ মিনিটে। মিনিট দশেক খোশগল্প করে চলে যান তিনি। পরিদর্শনকালে সাংবাদিক লাউঞ্জের সুবিধা-অসুবিধাও ‍জানতে চান রাষ্ট্রপতি।

এ সময় সাংবাদিকরাও রাষ্ট্রপতির শরীরের খোঁজ খবর নেন।  রাষ্ট্রপতি বলেন, আমি যখন এখান থেকে যাই, তখন ছিলাম ৬৮ কেজি, এখন ৬৯ কেজি। এই কয়েক বছরে এক কেজি ওজন বেড়েছে।

একজন সাংবাদিক তার জীবনী লেখার কথা জানতে চাইলে রাষ্ট্রপতি বলেন,  শুরু করেছি, মরার আগে হয়তো শেষ করতে পারব।