বাংলাদেশ-ভারত কোয়ার্টার ফাইনাল আম্পায়ারদের বিতর্কিত সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল হবে: বাংলাদেশ

তাদের এ সিদ্ধান্তগুলো নিয়ে এরইমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটার ফেসবুকেও আলোচনা- সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

বিশেষ করে ভারতীয় ব্যাটসম্যান রোহিত শর্মা রুবেল হোসেনের বলে আউট হলেও আম্পায়ার ইয়ান গুল্ড ও আলিম দার সেটিকে নো বল দেয়ায় তাদের পড়তে হয়েছে সমালোচনার তোপে। শেইন ওয়ার্ন, ভিভিএস লক্ষণের মতো সাবেক তারকা ক্রিকেটাররাও সমালোচনা করেছেন আম্পায়ারদের এ সিদ্ধান্তের। এদিকে ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে মাহমুদুল্লাহর আউটের সিদ্ধান্তও ছিল ভুল।

ভারতের ইনিংসের তখন ৪০তম ওভার। চতুর্থ বলে রুবেল হোসেনের ফুলটস বলে ডিপ মিড উইকেটে ক্যাচ দেন রোহিত শর্মা। তবে ফুলটস বলটিকে ‘নো’বলের সঙ্কেত দেন পাকিস্তানি আম্পায়ার আলিম দার। তার সঙ্কেত অনুসরণ করেন ইংলিশ আম্পায়ার ইয়ান গুল্ড।

আম্পায়ারদের এমন হঠকারি সিদ্ধান্তে হতবাক হয়ে যান বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। অধিনায়ক মাশরাফি ও ওপেনার তামিম আম্পায়ারের সঙ্গে কথা বলতে গেলে তারা আমলেই নেননি বিষয়টি। এমনকি সঠিক সিদ্ধান্তের জন্য থার্ড আম্পায়ারেরও পরামর্শ নেননি তারা।

এ নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েছেন এ দুই আম্পায়ার। ভারতের সাবেক ক্রিকেটার ভিভি এস লক্ষণ তার টুইটার অ্যাকাউন্টে লিখেছেন ‘গুল্ডের সিদ্ধান্তটি বাজে ছিল। বলটি অবশ্যই কোমড়ের ওপরে ছিল না। রোহিত ভাগ্যের সহায়তা পেয়েছেন।‘

সে সময় ধারাভাষ্য দেয়া অস্ট্রেলিয়ার কিংবদন্তি স্পিনার শেইন ওয়ার্ন বলেন, ‘রিপ্লে দেখে মনে হচ্ছে বলটি কোমড়ের ওপর ছিল না। বলটি খেলার সময় রোহিত ঝুঁকে ছিলেন। নো বল দেয়ার মত যথেষ্ট উঁচুতে ছিলনা বলটি।’

ক্রিকেটের সব থেকে নির্ভরযোগ্য ওয়েবসাইট ইএসপিএন ক্রিকইনফো সন্দেহ প্রকাশ করে টুইট করেছে, ডিপ মিড উইকেটে ক্যাচ বলটি উচ্চতার জন্য নো দেয়া ঠিক ছিল কিনা।

সে সময় ৯০ রানে অপরাজিত ছিলেন রোহিত। পরে সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে শেষমেষ তাসকিনের বলে যখন বোল্ড হন তখন তার রান ১২৬। তবে বিশেষজ্ঞদের মতে আম্পায়াররা সঠিক সিদ্ধান্ত দিলে হয়তবা আরও কম হতে পারত ভারতের সংগ্রহ।

শুধু রোহিত শর্মার আউট নয়, ভারতের ব্যাটসম্যান সুরেশ রায়না ও বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান মাহমুদুল্লাহর আউট নিয়েও চলছে আলোচনা সমালোচনা।