নকল করতে না দেয়ায় কেরানীগঞ্জে শিক্ষক হত্যা » Leading News Portal : BartaBangla.com

বার্তাবাংলা ডেস্ক »

42373_f3বার্তাবাংলা ডেস্ক ::কেরানীগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষায় নকল করতে না দেয়ায় গতকাল ভোরে চুনকুটিয়া গার্লস স্কুলের সহকারী ইংরেজি শিক্ষক মো. গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়াকে হত্যা করেছে এক ছাত্র। ঘটনার পর থেকেই এসএসসি পরীক্ষার্থী রিয়াদ হোসেন পলাতক রয়েছে। এই ঘটনার প্রতিবাদে স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও সাধারণ লোকজন হত্যার বিচারের দাবিতে ঢাকা-মাওয়া সড়কের
লিংকরোডে বিক্ষোভ মিছিল ও রাস্তা অবরোধ করে রাখে। এই খবর ছড়িয়ে পড়লে ঢাকা-মাওয়া সড়ক জনসমুদ্রে পরিণত হয়। এসময় পুলিশ বাধা দিলে শিক্ষার্থীরা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠে। তারা দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল করে। বিকাল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত রাস্তায় অবস্থান করছিল শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও সাধারণ লোকজন। কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ বিচারের আশ্বাস দিলে বিক্ষোভকারীরা অবরোধ তুলে নেয়। ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে আসেন ঢাকা জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ফারুক হোসেন, কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বাবুল মিয়া, কেরানীগঞ্জ, নবাবগঞ্জ সার্কেল এএসপি ডা. শহিদুল ইসলাম। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঘটনার খবর পেয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ মিটফোর্ড হাসপাতাল মর্গে আসেন। তিনি এ ঘটনায় সহমর্মিতা প্রকাশ করে নিহতের স্ত্রী লাকি বেগমকে সরকারি চাকরি দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। অন্যদিকে শিক্ষক হত্যার ঘাতক রিয়াদ হোসেনের বাসায় বিক্ষোভকারীরা ভাঙচুরের চেষ্টা চালায়। রিয়াদের পরিবার বাসায় তালা দিয়ে পালিয়ে যায়। তার বাসার সামনে অতিরিক্ত পুলিশ দেয়া নিয়ে মানুষের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। নিহত স্কুল শিক্ষক গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়ার পরিবারের মধ্যে নেমে আসছে শোকের ছায়া। তার স্বজনদের আহাজারিতে আকাশ-বাতাস ভারি হয়ে উঠছে। শিক্ষকের স্ত্রী লাকি বেগম বার বার মূর্ছা যাচ্ছেন। নিহতের দুই শিশু সন্তান রাজ ও রাজিব তার বাবার কি হয়েছে তারা বুঝতে পারেনি।
একাধিক সূত্র জানায়, রোববার এসএসসির অংক পরীক্ষা ছিল। ওরিয়েন্ট হাইস্কুলের এসএসসি পরীক্ষার্থী রিয়াদ হোসেন অংক পরীক্ষা দিচ্ছিল। পরীক্ষা হলে চুনকুটিয়া গার্লস স্কুলের সহকারী ইংরেজি শিক্ষক গোলাম মোস্তফা ডিউটি করছিলেন। পরীক্ষার্থী রিয়াদ হোসেন অংক নকল করার চেষ্টা করে। এই সময় শিক্ষক গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া নকল করতে না দেয়ায় ক্ষুব্ধ হয় রিয়াদ হোসেন। ওই সময় সে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়। রিয়াদ হোসেন পরীক্ষা না দিয়ে হল থেকে বেরিয়ে যায়। শিক্ষক গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া চুনকুটিয়া পূর্বপাড়া ফাতেমা ভিলার তৃতীয় তলায় ভাড়া থাকেন।
চুনকুটিয়া গার্লস স্কুলের প্রধান শিক্ষক কেএম ইলিয়াস হোসেন জানান, অংক পরীক্ষার সময় নকল করার চেষ্টা চালিয়ে ছিল রিয়াদ। পরীক্ষা শুরু থেকে সে শিক্ষকদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করে। ইংরেজি শিক্ষক গোলাম মোস্তফা নকল করতে বাধা দিলে তার উপর চড়াও হয়। পরে স্কুলের সকল শিক্ষক এসে ঘটনাটি মীমাংসা করে দেয়। মীমাংসা হলেও রিয়াদ তাকে হত্যার হুমকি দিয়ে যায়।
নিহতের স্ত্রী লাকি বেগম জানান, শুভাঢ্যা ইউনিয়নের তেলঘাট এলাকার ইব্রাহিমের ছেলে রিয়াদ হোসেন ভোরে তাদের বাসার সামনে আসে। এসময় স্যার বলে গেটে ধাক্কাধাক্কি করে। গেট খুললে রিয়াদ হোসেন বাসার ভিতর প্রবেশ করে। তাকে বসতে বললে সে বসতে চায়নি। এসময় তার স্বামী গোলাম  মোস্তফা সামনে গেলে হঠাৎ একটি ধারালো চাকু দিয়ে বুকে আঘাত করে। মুহূর্তের মধ্যে রিয়াদ হোসেন দৌড়ে পালিয়ে যায়। এসময় তার চিৎকারে পাশের লোকজন তার স্বামীকে উদ্ধার করে মিটফোর্ড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত্যু বলে ঘোষণা করেন। রিয়াদ হোসেন অংক পরীক্ষা না দিয়ে হল থেকে বেরিয়ে গিয়েছিল। সে একজন খারাপ ছাত্র- এই কথাটি তার স্বামী রাতে বলেছিল। কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বাবুল মিয়া জানান, খুব সকালে এসএসসি পরীক্ষার্থী ইংরেজি শিক্ষক মোস্তফা ভূঁইয়াকে ছুরিকাঘাত করে। হাসপাতালে নেয়ার পর সে মারা যায়। হত্যাকারীকে ধরার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এই ঘটনায় কেরানীগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক অফিসার ফিরোজা বেগম জানান, নিহত স্কুল শিক্ষক গোলাম মোস্তফার লাশ তার গ্রামের বাড়ি নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানার দিগলদি গ্রামে পাঠানোর জন্য ১০ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

মন্তব্য করুন »