বার্তাবাংলা ডেস্ক »

Screenshot_5বার্তাবাংলা ডেস্ক ::  ‘নারী নির্যাতন সামাজিক ও আইনগত ভাবে অপরাধ, নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই’। এই আহ্বানকে সামনে রেখে ‘আমরাই পারি পারিবারিক নির্যাতন প্রতিরোধ জোট’ ভ্যান র‌্যালী কর্মসূচী উদযাপন করেছে। ২৫ নভেম্বর নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবসের পক্ষকাল ব্যাপী উদযাপনে রাজধানী ঢাকায় এ র‌্যালির আয়োজন করা হয়।

রোববার সকালে মানিক মিয়া এভিন্যুউতে ভ্যান ক্যাম্পেইনটির উদ্বোধন করেছেন মানবাধিকার কর্মী সুলতানা কামাল। আয়োজনে আমরাই পারি জোটের চেয়ারপারসন সুলতানা কামাল, নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে তৃণমূল থেকে রাষ্ট্রীয়’ সকল পর্যায়ে সচেতনতা তৈরির আহ্বান জানান।

নারী নির্যাতন প্রতিরোধে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত ১৬ দিনের ক্যাম্পেইন কর্মসূচীর উদ্বোধনের সময় তিনি জানান, প্রতি বছর আমরাই পারি জোট-এর সহযোগী সংস্থাগুলো দেশের ৪৮ জেলায় বিভিন্ন ক্যাম্পেইন-এর মাধ্যমে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ উদযাপন করে থাকে।

আয়োজনে আরও বক্তব্য রাখেন চেঞ্জমেকাররা। তারা বলেন নারী পুরুষের সমতা তৈরিতে সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে। নারীর প্রতি নকল ধরণের নির্যাতনকে অন্যায় হিসেবে অভিহিত করেন। তারা পরিবার ও সমাজের সর্বস্তরে নারীর প্রতি নির্যাতনমূলক আচরণ থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান।

আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন আমরাই পারি’র জাতীয় সমন্বয়কারী জিনাত আরা হকসহ আরও অনেক নারী সংগঠনের নেত্রীবৃন্দ ও দেশ বরেণ্য ব্যক্তিত্ব। তারা সংহতি জানিয়েছেন নারী নির্যাতন বন্ধের। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন অক্সফ্যাম এর প্রতিনিধি- ফারহানা হাফিজ, ব্লাস্ট এর প্রতিনিধি কল্পনা বসু এবং শিহাব সিরাজী এবং বিডব্লিউএইচসি-এর পক্ষে ড. জিল্লুর।

আমরাই পারি জোট নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ২৫ নভেম্বর থেকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১৬ দিনের ক্যাম্পেইন কর্মসূচির অংশ হিসেবে এ আয়োজন করে। সকাল সাড়ে ৯ টায় জাতীয় সংসদভবনের দক্ষিণ প্রাঙ্গন থেকে আমরাই পারির চেঞ্জমেকাররা ৮টি পিকআপ ভ্যানে যাত্রা শুরু করেন। দুপুর ২টা পর্যান্ত নারী নির্যাতন বিরোধী বার্তা প্রচার করেন রাজধানীর ২৫টি স্থানে। পাশাপাশি সচেতনতামূলক লিফলেট, বুকলেট বিতরণ করেন। স্থানগুলো হলো- প্রেসক্লাব, দৈনিক বাংলা, মতিঝিল শাপলা চত্বর, মালিবাগ, মগবাজার, সাতরাস্তা, মহাখালি,গুলশান -০১,গুলশান-০২, শুক্রাবাদ, সায়েন্সল্যাব, নীলক্ষেত, আজিমপুর, কলেজগেট, কল্যানপুর, গাবতলী, ফার্মগেট, শাহবাগ, টি.এস.সি, মিরপুর -০১, মিরপুর-১০, মিরপুর-১১-১২,গুলিস্থান, কোটকাচারী, সদরঘাট।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »