বার্তাবাংলা ডেস্ক »

bnpবার্তাবাংলা ডেস্ক ::হত্যা-গুম-গ্রেপ্তার করে সরকার চলমান আন্দোলন দমাতে পারবে না বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন কারাগার থেকে মুক্ত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শুক্রবার বিকালে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবরে পুস্পমাল্য অর্পণ শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার জনগনের আন্দোলন শুরু হয়ে গেছে। হত্যা-গুম-নির্যাতন-গ্রেপ্তার করে এই আন্দোলনকে দমানো যাবে না।”

এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন সম্প্রতি অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে মুক্ত হওয়া দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

উচ্চতর আদালতের অন্তবর্তীকালীন জামিনে গত ৫ ফেব্রুয়ারি মির্জা ফখরুল কাশিমপুর কারাগার থেকে মুক্তি পান। পরদিন রিজভী হাই কোর্টে গিয়ে জামিন নেন। গত ১০ ডিসেম্বর ফখরুল গ্রেপ্তার হন। তার বিরুদ্ধে ৬টি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। একই মামলায় আসামি হয়ে রিজভী নয়া পল্টনের কার্যালয়ের ভেতরে অবরুদ্ধ ছিলেন ৫৮দিন।এ সময়ে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আর এ গনি, মওদুদ আহমদ, জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, সহসভাপতি সাদেক হোসেন খোকা, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ওসমান ফারুক, অধ্যাপক এ জেড এম জাহিদ হোসেন, যুগ্মমহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, মোহাম্মদ শাহজাহান, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, মশিউর রহমান, গোলাম আকবর খন্দকার, জ্যেষ্ঠ নেতা আবদুস সালাম, নুর মোহাম্মদ খান, মাসুস আহমেদ তালুকদার, হাবিবুর রহমান হাবিব, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, সাংসদ শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, জয়নাল আবেদীন(ভিপি জয়নাল), যুবদলের আবদুস সালাম আজাদ, সাইফুল আলম নিরব, স্বেচ্ছাসেবক দলের হাবিব উন নবী খান সোহেল, মীর সরফত আলী সপু, মহিলা দলের নুরী আরা সাফা, শিরিন আখতার, ছাত্র দলের আবদুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল প্রমুখ নেতৃবৃন্দসহ কয়েক হাজার কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

পুস্পমাল্য অর্পণের পর প্রয়াত নেতার আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

পরে সাংবাদিকদের শাহবাগে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে আন্দোলন সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে ফখরুল এই বিষয়ে সুস্পষ্টভাবে কিছুই বলেননি।

এর আগে সদ্য কারামুক্ত মির্জা ফখরুল বিরোধী দলের ওপর সরকারের দমনপীড়নের কথা তুলে ধরে বলেন, “স্বৈরাচার আওয়ামী লীগ সরকার দমননীতির মাধ্যমে বিরোধী রাজনীতি স্তব্ধ করার চক্রান্তের অংশ হিসেবে আমাকে, রিজভীকেসহ সারাদেশে হাজার হাজার নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে। আমরা মনে করি, জনগনের অধিকার আদায়ের যে সংগ্রাম শুরু হয়ে গেছে, তা হত্যা-গুম ও গ্রেপ্তার করে বন্ধ করা যাবে না। নির্দলীয় সরকারের আন্দোলনে দেশের মানুষকে দাবিয়ে রাখা যাবে না। তারা বিজয় অর্জন করবেই।”

শনিবার দুপুরে রাজধানীর নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নির্দলীয় সরকারের দাবিতে ঘোষিত বিক্ষোভ সমাবেশে নগরীর নেতা-কর্মীদের অংশ নেওয়ার আহবানও জানান তিনি।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »