মৌলভীবাজারে বাল্যবিবাহের হাত থেকে রক্ষা পেল সাহারা » Leading News Portal : BartaBangla.com

বার্তাবাংলা ডেস্ক »

child-marriageএস এ চৌধুরী, মৌলভীবাজার :: অল্পের জন্য বাল্য বিবাহের হাত থেকে এসএসসি পরীক্ষার্থী এক কিশোরী রক্ষা পেয়েছে। সূত্রে জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার ৪নং শমশেরনগর ইউপির রাধানগর গ্রামের মৃত মোঃ আমিন আলী (বেনিয়া) ও মোছাঃ সুফিয়া বেগম (সাফিয়া)র মেয়ে মোছাঃ রোখসাত আরা (সাহারা)র সাথে আমিন আলীর আপন ভাগিনা  একই এলাকার শিংরাউলী গ্রামের মৃত তসলিম মিয়া ও  মোছাঃ লুৎফুন নাহার এর ২য় ছেলে মোঃ মিজানুর রহমান (সেজু)র সাথে আজ ৮ ফেব্রুয়ারী বিয়ের দিন ধার্য্য করা হয় । বিয়ের পূর্ব দিন বৃহস্পতিবার কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকাশ কান্তি চৌধুরী গোপন সংবাদ পেয়ে কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা নীহার রঞ্জন নাথসহ ঘটনাস্থলে(মেয়ে পক্ষের বাসা) এসে বয়স স্বল্পতার কারণে বিয়ের যাবতীয় কার্যক্রম স্থগিতাদেশ দিলে মেয়ে পক্ষ বিয়ের গেট খোলে ফেললেও ছেলে পক্ষ গেট না খোলে বহালাবস্থায় ছিল। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা না থাকলেও স্থানীয় আউলিয়া কমিউনিটি সেন্টারে মেয়ে পক্ষের দাওয়াতী লোকজনদের ধার্য্যকৃত দিনে আপ্যায়ন করানো হয় । বিষয়টির ব্যাপারে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকাশ কান্তি চৌধুরী মুঠোফোনে বার্তা বাংলাকে বলেন, বিষয়টি আমার নলেজে ছিল । প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলেছিলাম । বয়স কম এবং বিয়ে বাতিলের সত্যতা স্বীকার করে মেয়ের চাচা রুহুল আমিন চুনু বলেন, লোকজনের কানাঘুষায় বিয়ে এক বছর পিছিয়েছি । মেয়েকে আজ পরীক্ষা সেন্টারে (এসএসসি) পরীক্ষা দেয়ার জন্য পাঠিয়েছি । এক প্রশ্নোত্তরে তিনি (চুনু) বলেন, বিয়ে হচ্ছেনা পিছিয়ে দিয়েছি, গেট থাকা আর না থাকা সমান । তবে গেট খোলে ফেলবে। ছেলেও আমার মেয়েও আমার । কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা নীহার রঞ্জন নাথ মুঠোফোনে বলেন, বাল্য বিবাহ হচ্ছে এ ধরনের ইনফরমেশন (তথ্য) আমার কাছে নেই । যেহেতু বিয়ে হচ্ছেনা একজন লোক দাওয়াত দিয়ে লোকজনকে খাওয়ালে দোষের কি? এলাকার কয়েকজন নাম নাপ্রকাশের অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ছেলে এবং মেয়ে পরস্পর আত্মীয় । উভয় পরিবারে আভ্যন্তরীন বিরোধের কারণে হয়তবা তাদের মধ্যে কেউ প্রশাসনকে জানিয়েছে । তাছাড়া মেয়ের বাপের রেখে যাওয়া সম্পদের মোহে ছেলে বা তার পক্ষের লোকজন তড়িঘরি করে বিয়ে সম্পন্নের চেষ্ঠা করছিল।

 

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

আমি ফারজানা চৌধুরী তন্বী। লেখালিখি করি ফারজানা তন্বী নামে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করার পর আজ প্রায় পাঁচ বছর ধরে লেখালিখির সঙ্গেই আছি। বার্তাবাংলা’য় কাজ করছি সিনিয়র রিপোর্টার হিসেবে। আমার বিশেষ আগ্রহের ক্ষেত্র ফিচার, প্রযুক্তি আর লাইফস্টাইল। ভালো লাগে ভ্রমণ, বইপড়া, বাগান করা আর ইন্টারনেট নিয়ে পড়ে থাকা :)

মন্তব্য করুন »