নবগঠিত ছাত্রদলের কমিটি বাতিলের দাবি

বার্তাবাংলা ডেস্ক :: ছাত্রদলের নতুন কমিটি বাতিলের দাবিতে আবারো বৈঠক করেছেন আন্দোলনরত (পদবঞ্চিত ) ছাত্র নেতারা। রোববার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত বৈঠক ফের আন্দোলনের সিদ্ধান্ত হয়েছে পদবঞ্চিতদের একটি সূত্র নিশ্চিত করেন।

বৈঠক সূত্র জানা গেছে, নবগঠিত ছাত্রদলের কমিটি বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত পদবঞ্চিত ছাত্র নেতাদের স্থগিত করা কর্মসূচি আবারো অব্যাহত রাখার বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বৈঠকে বিএনপির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী এবং সহ-ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক সুলতান সালাহ উদ্দিন টুকুকে দল থেকে অব্যাহতির বিষয়ও প্রাধান্য পায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ছাত্র দলের পদবঞ্চিত ছাত্র নেতা শীর্ষ নিউজকে বলেন, মঙ্গলবার ছাত্র দলের বিরাজমান সদস্যা সমাধানের জন্য দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নির্দেশক্রমে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস এবং বিএনপির যুব বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ছাত্রদলের পদবঞ্চিত নেতাদের নিয়ে বৈঠক করেন। সেখানে মির্জা আব্বাস ও আলাল ভাইকে বর্তমান কমিটিকে ঘিরে সৃষ্ট সকল বিষয় অবহিত করা হয়। তখন তারা দুজন চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে কথা বলে জানাবেন বলেন আশ^স্ত করেন।

কিন্তু আশ্বাসের পাঁচ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত কোনো সমাধানের বার্তা আসেনি।

তাই অনেকটা বাধ্য হয়েই স্থগিত করা অবস্থান কর্মসূচি পুনরায় পালন করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

আরেকটি সূত্র জানায়, দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সৃষ্ট সমস্যা সমাধান না হওয়া পর্যন্ত নতুন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে ছাত্র দলের কেন্দ্রীয় অফিসে যেতে নিষেধ করেন। কিন্তু তারা তা মানেনি। প্রায় প্রতিদিনই তারা নয়া পল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যাচ্ছে। তাই আমরাও সোমবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দলীয় কার্যালয়ে যাবো।

মির্জা আব্বাস ও আলালের সঙ্গে বৈঠক করার পর  থেকে এ পর্যন্ত তাদের কাছ থেকে কোনো প্রকার যোগাযোগ করা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে পদবঞ্চিত ছাত্র দলের একজন জানান, বিএনপির যুব বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলালকে বিশেষ ক্ষমতা আইনে গ্রেফতার করা হয়েছে আর মির্জা আব্বাসের সঙ্গে আমরা চেষ্টা করেও যোগাযোগ করতে পারছি না।

ছাত্র দলের সৃষ্ট সমস্যা সমাধান না হওয়া পর্যন্ত কেন্দ্রীয় অফিসে যেতে খালেদা জিয়া নিষেধ করেছেন কি না জানতে চাইলে ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মো. আকরামুল হাসান শীর্ষ নিউজকে বলেন, ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) আমাদের এ রকম কোনো নির্দেশনা দেননি। এমনকি আমরাও এমন কোনো কিছু জানি না।

পদবঞ্চিতদের মধ্যে রয়েছেন- আবু সাঈদ, আনিছুর রহমান তালুকদার খোকন, জাভেদ হাসান স্বাধীন, তরুণ দে, শহীদুল্লাহ ইমরান, ফেরদৌস আহমেদ মুন্না, তরিকুল ইসলাম টিটু, রবিউল হাসান সবুজ, নুরুজ্জামান মুকিত লিংকন, মশিউর রহমান মিশু, রাকিবুল ইসলাম রয়েল, শাহসুদ্দোহা, সুমন, হাবিবুর রহমান সুমন, রফিকুল ইসলাম, আসাদুজ্জামান মিয়া, এস এম মোশারফ হোসেন মিশু, দবির উদ্দিন তুষার, মনিরুল ইসলাম রয়েল, এছাড়া বর্তমান কমিটির রয়েছেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ইসহাক সরকার ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গাজী রেজাওয়ানুল হক রিয়াজ।

উল্লেখ্য, ১৪ অক্টোবর রাজীব আহসানকে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মো. আকরামুল হাসানের নাম ঘোষণা করে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ২০১ সদস্য বিশিষ্ট (আংশিক) নতুন কমিটি অনুমোদন করেন খালেদা জিয়া।