অর্থ কেলেঙ্কারীতে চেয়ারম্যানসহ ৩ নেতা বহিষ্কার

বার্তাবাংলা ডেস্ক ::    অর্থ কেলেঙ্কারীতে জড়িত ন্যাপের সাবেক চেয়ারম্যান শেখ আনোয়ারুল হক, সাবেক সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান অলতাফ হোসেন মুন্না ও মহাসচিব হাসরত খান ভাসানীকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। একইসঙ্গে ভারপাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে কলামিস্ট এম আখতারুজ্জামানকে এবং ভারপাপ্ত মহাসচিব হিসেবে অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসেনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

একটি বিশেষ মহলের মাধ্যমে আর্থিক লেনদেনের সঙ্গে জড়িত হয়ে ২০ দলীয় জোট থেকে বেড়িয়ে তথাকথিত ১০ দলীয় জোটে যোগদান করায় তাদের দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে ন্যাপ জানায়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের বর্ধিত হলরুমে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি- ন্যাপ ভাসানী আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কলামিস্ট এম আখতারুজ্জামান।

সংবাদ সম্মেলনে আখতারুজ্জামান জানান, ষড়যন্ত্রকারীরা আর্থিক লেনদেন ও লোভ-লালসার বশবর্তী হয়ে ন্যাপের নির্বাহী কমিটি বা দলীয় কোনো সিন্ধান্ত ছাড়াই তথাকথিত ১০ দলে যোগ দান করেন। দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ, মওলানা ভাসানী ও ন্যাপ ভাসানীর আদর্শবিরোধী কাজে লিপ্ত হওয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাদের দল থেকে অব্যহতি দেয়া হয়।

তিনি বলেন, ‘দলের ৯০ শতাংশ কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাদের উপস্থিতিতে তাদের অব্যহতি দেয়া হয়েছে এবং নির্বাহী কমিটির অপর সিন্ধান্তে আগামী কাউন্সিল না হওয়া পর্যন্ত ভারপাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে আমি আখতারুজ্জামান এবং ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব হিসেবে অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসেনের নাম ঘোষণা করা হয়।’

ন্যাপের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বলেন, ‘জাতীয় রাজনীতি আজ এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। রাজনীতি আজ ষড়যন্ত্রের বেড়াজালে আচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে। গণতন্ত্র, বাকস্বাধীনতা অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। জণগণের অধিকার বলতে কিছুই নেই।’

এসময় নিপীড়ন, নির্যাতন, হত্যা, গুম, খুন, ছিনতাই, রাহাজানী, দুর্নীতি, লুটপাট জাতিকে আজ এক মহাসঙ্কটে ফেলে দিয়েছে। তাই দেশবাসীকে গণতন্ত্র উদ্ধারে দলমত নির্বিশেষে ন্যাপের পতাকা তলে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বানও জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন- দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ চৌধরী, সহ-সভাপতি জাকারিয়া খান, ছাদেকুল ইসলাম, মহাসচিব অ্যাডভোকেট মো. জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ।